1. recentnews19@gmail.com : News Desk :
  2. moinul129@gmail.com : mohin :
  3. editormuktinews24@gmail.com : Melon parvez : Melon parvez
বৃহস্পতিবার, ২৯ অক্টোবর ২০২০, ০২:৪২ অপরাহ্ন

পাবর্তীপুরের ফুটবল ঐতিহ্য ধরে রেখেছেন শমশের

  • প্রকাশ : শনিবার, ২৯ আগস্ট, ২০২০, ৮.৩২ পিএম
  • ১০ বার

এমএন২৪.কম ডেস্ক : বাংলাদেশের উত্তর জনপদের বহুল পরিচিত এক ফুটবল স্বর্গীয় উদ্যানের নাম দিনাজপুরের পার্বতীপুর। যেখানে একসময় দেশবরেণ্য কিংবদন্তি যাদুকর সামাদ সুনামের সাথে ফুটবলের জাদুকরি সৌন্দর্য্য প্রদর্শন করেছেন। সেই পার্বতীপুরে উজ্জল এক ফুটবল খেলোয়াড় এবং সংগঠকের নাম মোঃ শমশের আলী। যিনি উত্তরবঙ্গসহ এদেশের ফুটবলযোদ্ধাদের নিকট “শমশের” নামেই সুপরিচিত। খেলোয়াড় হিসেবে ১৮ বছর স্বর্ণালি ক্যারিয়ারে তিনি এখনো যুক্ত।

খেলোয়াড়ী জীবনে ভাগ্যের নিয়তির কাছে ২০০৩ সালে অনূর্ধ্ব ১৭ এবং অনুর্ধ ২০ জাতীয় দলের ডগ স্কোয়াডে থেকেও জাতীয় দলে খেলার স্বপ্ন অসাধু কিছু স্বজনপ্রীতি করা সংগঠকের কাছে ধূলিষ্যাৎ হয়ে যায়। ২০১০ সালে মোহামেডান স্পোর্টিং ক্লাবে ৯ দিন থাকার পর ছিটকে যেতে হয় এই খেলোয়াড় এবং সংগঠককে। তবুও তিনি ফুটবলের হাল ছাড়েন নি। তিনি তৃনমুলের কিশোর ও তরুণদের খেলাধুলার জন্য যা করেছেন তা বাংলাদেশের খেলাধুলা সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিদের মধ্যে অনন্য দৃষ্টান্ত হয়েই বেঁচে থাকবে। বর্তমান খেলাধুলার ক্ষেত্রে কিশোর ও তরুণদের জন্য ব্যাক্তিগতভাবে ফুটবল ক্রয়, জার্সী, প্যান্ট, হুজ, সিঙ্গগার্ড প্রদানসহ নিজের পকেটের টাকা ব্যয় করে পার্বতীপুরের খেলোয়াড় গড়ার কারখানা চালু রেখেছেন।

এদেশে যখন ফুটবল কর্মকর্তারা তাদের চেয়ার এবং ক্ষমতার মোহে অন্ধ এবং বেপরোয়া হয়ে উঠেছেন তখন তৃণমুলে পড়ে থাকা ফুটবল পাগল সংগঠক শমসের পরবর্তী প্রজন্মের জন্যে ফুটবলের ভাবনা ভেবে নিজের ঘুম হারাম করে দিনের পর দিন সবুজ মাঠের নেশায় ক্লান্তিহীনভাবে কাজ করে চলেছেন।

তিনি উত্তরবঙ্গের প্রত্যন্ত অজোপাড়া গাঁ, উপজেলা, জেলাসহ বাংলাদেশের ৪২ টি জেলায় ফুটবরের সাথে বিচরণ করাসহ ইন্ডিয়াতে ৪৯ বার সফর করেছেন। এই সফরের মাঝে ভারতের সাথে পার্বতীপুর ফুটবল একাডেমীকে নিয়ে ৭টা আন্তর্জাতিক ফুটবল টূর্ণামেন্টে অংশ গ্রহণ করে বিভিন্ন জেলার খেলোয়াড়দের ক্যারিয়ারে বেশ উজ্জল ভূমিকা পালন করে যাচ্ছেন। এমনকি ফুটবলের প্রতি তার অগাধ ভালোবাসা ও দায়বদ্ধতা থেকেই তরুণ উদীয়মান খেলোয়াড়দের নিয়ে ১০/১০/২০১৫ সালে তিলে তিলে গড়ে তুলেছেন ফুটবল একাডেমী পার্বতীপুর। কিশোর ও প্রতিভাবান তরণদের মাঠমুখী করতে ও ভালমানের খেলোয়াড় গড়ে তোলার লক্ষে অবিরামভাবে কাজ করে যাচ্ছেন। যেখানে সকল স্তরের ফুটবলাররা বিনা খরচে নিয়মিত প্রশিক্ষণ নিতে পারে। ইতিমধ্যে এই একাডেমীর নামকরা কয়েকজন খেলোয়াড় উত্তরবঙ্গে দাপটের সাথে ফুটবল খেলে যাচ্ছে।

 

 

 

 

কৃতি ফুটবলার শমশের একজন খেলোয়াড় এবং পরিচালক হিসেবে প্রতিদিন নিজে মাঠে উপস্থিত থেকে ফুটবলারদের প্রতিটি খেলায় উৎসাহিত করে যাচ্ছেন। তার এই অদম্য ফুটবল পেশাদারিত্ব তাকে উত্তরবঙ্গে সফল সংগঠক হিসেবেও যথেষ্ট পরিচিতি এনে দিয়েছে। জনপ্রিয় ফুটবলার শমসের এর সাথে কথা হলে তিনি জানান- বাংলাদেশের সবচেয়ে জনপ্রিয় এই ফুটবল খেলাকে তৃণমুলের সবুজ মাঠে যারা ব্যক্তিগতভাবে এবং ফুটবল একাডেমী পাবর্তীপুরের মত সাংগঠনিকভাবে জিইয়ে রেখেছেন তাদের দিকে বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশন সহ শীর্ষ পর্যায়ের সংগঠকদের নজর দিতে হবে এমনকি ক্রীড়া মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমেও স্থানীয় প্রশাসন দ্বারা তাদের আর্থিক প্রণোদনাসহ ব্যাপক উৎসাহ উদ্দীপনা দেয়া হলে তৃণমুল থেকে শত শত ফুটবলার দেশের জন্যে সরবরাহ করা সস্ভব। তিনি আরো বলেন ফুটবলই আমার ধ্যান এবং ফুটবলই আমার জ্ঞান। যতদিন বেঁচে থাকবো ফুটবলের জন্যে কাজ করে যেতে চাই।

সামাজিক যোগাযোগে শেয়ার করুন

এই ক্যাটাগরীর আরও খবর
themesbazarmuktin141