বুধবার-৩রা মার্চ, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ-১৮ই ফাল্গুন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ,-সন্ধ্যা ৬:১৭

Reg No-36 (তথ্য মন্ত্রনালয় কর্তৃক নিবন্ধনকৃত)

চটপটি বিক্রির আড়ালে ইয়াবা বেচাকেনা ! মুক্তিযোদ্ধাদের জন্য ৩০ হাজার বীর নিবাস করবে সরকার পাঁচবিবিতে সড়ক দুর্ঘটনায় অজ্ঞাত ব্যক্তির মৃত্যু ছাতকে ৪ শতাধিক অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ প্রফেসর মোঃ হানিফকে শেষ শ্রদ্ধা জানিয়েছেন বরিশালের সর্বস্তরের মানুষ। গাইবান্ধার গোবিন্দগঞ্জে এক শিশুকে ধর্ষণের চেষ্টায় মামলা মুশতাকের মৃত্যুতে বিদেশিদের বিবৃতিতে শিষ্টাচার লংঘিত হয়েছে -তথ্যমন্ত্রী

সান্তাহারে হকার্স মার্কেটে ছুটছে সবাই গরম কাপড় কেনার জন্য

প্রকাশ: মঙ্গলবার, ১৯ জানুয়ারি, ২০২১ , ৫:৫৮ অপরাহ্ণ , বিভাগ :

এএফএম মমতাজুর রহমান আদমদীঘি (বগুড়া ) প্রতিনিধি ঃ
উত্তরাঞ্চলে চলমান শৈত প্রবাহের কারণে শীতের তীব্রতা বেড়ে যাওয়ায় বগুড়ার আদমদীঘি উপজেলার সান্তাহারে ঐতিহ্যবাহি রেলওয়ে হকার্স মার্কেট জমে উঠেছে। সকাল থেকে রাত পর্যন্ত পছন্দের গরম কাপড় কেনার জন্য ক্রেতারা ভীড় করছেন। তবে গত কয়েক দিন শীতের তীব্রতা বেড়ে যাওয়ায় পা ফেলার জায়গা নেই মার্কেটে। বিক্রি বেড়ে গেছে কয়েকগুন। এখানে পছন্দ মতো কম দামে ভালো দেশি-বিদেশী গরম কাপড় পাওয়া যায় বলে নওগাঁ, বগুড়া ও জয়পুরহাট জেলাসহ আশেপাশের লোকজনেরা শীতের সময় কাপড় কেনার জন্য আসেন।
জানা গেছে, সান্তাহার জংশন রেলওয়ে স্টেশনের রেলগেইট সংলগ্ন স্বাধীনতা মঞ্চের পাশে প্রায় ৩০ বছর আগে গড়ে ওঠে এই হকার্স মার্কেটটি। এই মার্কেটে মূলত সকল বয়সের মানুষের জন্য দেশি-বিদেশী ব্লেজার, জ্যাকেট, কোট, কম্বলসহ সকল প্রকারের গরম কাপড় সুলভ মূল্যে পাওয়া যায়। বেছে বেছে নিজেদের পছন্দ মতো কাপড় কেনার জন্য শীত মৌসুমে হাজার হাজার মানুষ এখানে গরম কাপড় কেনার জন্য দূর-দূরান্ত থেকে আসেন। গরম কাপড় কেনার জন্য সমাজের সকল প্রকারের মানুষ প্রতিদিন ভীড় করেন এই মার্কেটে। তবে বিগত মৌসুমের চেয়ে চলতি মৌসুমে শীতের অগ্রিম তীব্রতার জন্য এ বছর কেনাকাটা অনেকটা ভালো হবে বলে আশা করছেন ব্যবসায়ীরা। তবে ছুটির দিনগুলোতে ক্রেতাদের ভীড় অনেক বেশি হয়। গরীব, মধ্যবিত্ত ও ধনী সকল পর্যায়ের লোকেরা এখানে এসে পছন্দ মতো কাপড় কিনতে পারেন। তবে পুরুষদের চেয়ে মেয়ে ক্রেতাদের সংখ্যা তুলনামূলক ভাবে বেশি হয় এই মার্কেটে। শুধু এই মার্কেটেই নয় শহরের রাস্তার পাশের ছোট-খাটো অন্যান্য ফুটপাতের মার্কেটগুলোতেও শীতের গরম কাপড় বিক্রির ধুম পড়েছে।
মার্কেটে কাপড় কিনতে আসা মাসুদ রানা বলেন, এই মার্কেট গরীবের মার্কেট হিসেবে পরিচিত। এখানে সকল প্রকারের মানুষ তার পছন্দ মতো গরম কাপড় কিনতে পারেন। কাপড়গুলোর দাম হাতের নাগালে থাকায় সবাই সাধ্যমতো গরম কাপড় কিনতে পারেন। এবছর শীত একটু আগে চলে আসার কারণে আমিও এসেছি নতুন কিছু গরম কাপড় কেনার জন্য।
আদমদীঘি জিনরই গ্রাম থেকে আসা আরেক ক্রেতা আনোয়ার হোসাইন বলেন, আমরা মধ্যবিত্ত পরিবারের মানুষ। আমাদের আয় কম। বড় বড় দামী মার্কেট থেকে বেশি দামে পরিবারের সদস্যদের জন্য গরম কাপড় কেনা সম্ভব নয়। তাই প্রতি বছরই শীতের মধ্যে সুযোগ করে এই মার্কেটে শীতের গরম কাপড় কেনার জন্য আসি। এখানে কম দামে নিজের পছন্দ মতো মান সম্পন্ন গরম কাপড় কেনা যায়। এবার শীত আগে আসায় আমরাও একটু আগেই এখানে কাপড় কেনার জন্য এসেছি। মার্কেটের দোকানদার খোকা মিয়া বলেন এই মার্কেটটি শীতের কয়েক মাস খোলা থাকে। তবে এবার শীতের তীব্রতা একটু আগে শুরু হওয়ায় বিক্রি অনেকটাই জমে উঠেছে। আর কিছুদিন এই শীত অব্যাহত থাকলে আমাদের বিক্রি অনেকটাই ভালো হবে বলে আশা করছি।
সান্তাহার রেলওয়ে হকার্স মাকের্টের নেতা ডালিম হোসেন বলেন, এটি এই অঞ্চলের ঐতিহ্যবাহি বহুল পরিচিত মার্কেট। আমরা শীতের সময় আশেপাশের সকল জেলা ও উপজেলার হাটে এই মার্কেটের গরম কাপড় বিক্রি করে আসছি। তবে এবার অগ্রিম শীত চলে আসায় বিক্রি খুব ভালো হচ্ছে। এখানে কয়েকটি জেলার মানুষ কাপড় কেনার জন্য আসেন। আমরা ক্রেতাদের নিরাপত্তার সকল ব্যবস্থা গ্রহণ করেছি। যে কেউ এসে এখানে স্বাচ্ছন্দ ভাবে কেনাকাটা করতে পারেন।

Facebook Comments

রংপুর,সারাদেশ বিভাগের সর্বোচ্চ পঠিত সংবাদ