রবিবার-৯ আগস্ট, ২০২০-২৫ শ্রাবণ, ১৪২৭, সময়: দুপুর ১:৩৭, English Version
সড়কে ঝরলো ২০ প্রাণ ‘জয়তু বঙ্গমাতা’ গ্রন্থের মোড়ক উন্মোচন করলেন প্রধানমন্ত্রী বঙ্গমাতার জন্মদিনে দুস্থ নারীদের প্রধানমন্ত্রীর নগদ অর্থ সহায়তা সিনহা হত্যায় কারা জড়িত তদন্তে খতিয়ে দেখা হচ্ছে : র‍্যাব শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খোলার ২০ দিন পরে এইচএসসি পরীক্ষা! মৃত্যু নিশ্চিত করতে পর পর দুটি গুলি করেন ওসি প্রদীপ সামনে আসছে যে সাত নিয়োগ পরীক্ষা

৬ ঘরোয়া উপায়ে দূর হবে শরীরের ফাটা দাগ

প্রকাশ: মঙ্গলবার, ২১ জুলাই, ২০২০ , ১১:৪০ পূর্বাহ্ণ , বিভাগ :

এমএন২৪.কম ডেস্ক :  ত্বকে বা শরীরের চামড়ায় ফাটা দাগ জনিত সমস্যা বা স্ট্রেচ মার্কের সমস্যায় অনেকেই ভুগে থাকেন। শরীরের ত্বকের বিভিন্ন অংশে এই ফাটা দাগ গুলো দেখা যায়। অনেকের মতে এই সমস্যা বাড়তি ওজনের জন্য হয়। শরীরের আয়তন যখন বেড়ে যায়, ত্বক তখন স্ট্রেচ করে বাড়তি আয়তনকে ঢাকতে। ফলে তৈরি হয় এই দাগ। ঘরোয়া কিছু কার্যকরী উপায়ে এটি দূর করা সম্ভব। চলুন তেমন ছয়টি উপায় সম্পর্কে জেনে নিই।

১. প্রতিদিন নারকেল তেল বা অলিভ অয়েলের সঙ্গে আমন্ড অয়েল মিশিয়ে নিন। এরপর সেই মিশ্রণ ফাটা দাগ উপর লাগিয়ে ফেলুন। কয়েক মিনিট রেখে ধুয়ে ফেলুন।

২. লেবুর রসের সঙ্গে বেকিং সোডা মিশিয়ে পেস্ট তৈরি করুন। এরপর ফাট দাগের উপর ব্যবহার করুন ওই মিশ্রণ। উষ্ণ পানি দিয়ে ধুয়ে মশ্চারাইজার লাগান।

৩. ফাটা দাগ দূর করতে লেবুর রসও ব্যবহার করতে পারেন। প্রতিদিন ফাটা দাগের উপর লেবুর রস মেখে নিন। এরপর ১০ মিনিট রেখে হালকা গরম পানি দিয়ে ধুয়ে মশ্চারাইজার লাগান।

৪. একটি বোতলে অ্যাপেল সিডার ভিনিগার ভরে নিন। এরপর প্রতিদিন ফাটা দাগের উপর সেটা স্প্রে করুন। ঘুমাতে যাওয়ার আগে প্রতিদিন নিয়ম করে ব্যবহার করুন অ্যাপেল সিডার ভিনিগার। এরপর সকালে তা ধুয়ে ফেলুন।

৫. ফাটা দাগ নির্মূল করতে হলুদও বেশ উপকারী। দই এর সঙ্গে হলুদ মিশিয়ে যদি ফাটা দাগের উপর ব্যবহার করতে পারেন, তাহলে উপকার পাবেন। প্রতিদিন ওই মিশ্রণ ফাটা দাগের উপর লাগাতে হবে এবং ধুয়ে ফেলতে হবে হালকা গরম পানি দিয়ে। এরপর সেখানে মশ্চারাইজার ব্যবহার করতে হবে।

৬. অ্যালোভেরা জেল দাগ তোলার জন্য ভীষণ উপকারী। অ্যালোভেরা জেল ফাটা জায়গায় কিছু সময় ম্যাসাজ করে শুকাতে দিন। এভাবে প্রতিদিন দু’বার ব্যবহার করলে দাগ উঠে যাবে।

তবে শরীরের ফাটা দাগ দূর করতে ম্যাসাজ করার পাশাপাশি যথেষ্ট পরিমাণে প্রোটিন সমৃদ্ধ খাবার খেতে হবে। যেমন- মাছ, মাংস, ডিমের সাদা অংশ, দই, বাদাম ও সূর্যমুখী তেলের বীজ। খেয়াল রাখতে হবে শরীরে যাতে কোনোভাবেই পানি ও প্রোটিনের ঘাটতি না হয়।

Facebook Comments

লাইফস্টাইল বিভাগের সর্বোচ্চ পঠিত সংবাদ