সোমবার-১৭ই মে, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ-৩রা জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ,-রাত ১০:৫২

Reg No-36 (তথ্য মন্ত্রনালয় কর্তৃক নিবন্ধনকৃত)

হাতিবান্ধায়বৃদ্ধের ঝুলন্ত মরদেহ উদ্ধার  কোয়ারেন্টাইন শেষে বাড়ি ফিরে ভারতফেরত দম্পতির করোনা শনাক্ত নতুন শিল্প সচিব হিসেবে যোগদান করেছেন জাকিয়া সুলতানা শেখ হাসিনার নাম চির ভাস্বর হয়ে থাকবে : ওবায়দুল কাদের মাথাপিছু আয় বাড়ল ১৬৩ ডলার নিজেদের তৈরি সুপার কম্পিউটার উন্মোচন করল ইরান আর্জেন্টিনা দলে ফিরলেন আগুয়েরো, জায়গা হয়নি দিবালার

ফুলবাড়ীতে জাল সনদধারী দুই মাদ্রাসা শিক্ষকের কাগজপত্র অধিদপ্তরে তলব

প্রকাশ: রবিবার, ২ মে, ২০২১ , ৯:৫২ পূর্বাহ্ণ , বিভাগ :


ফুলবাড়ী(কুড়িগ্রাম) প্রতিনিধি ঃ
কুড়িগ্রামের ফুলবাড়ীতে দুই মাদ্রাসা শিক্ষকের নিবন্ধন সনদ জাল মর্মে বেসরকারী শিক্ষক নিবন্ধন ও প্রত্যয়ন কর্তৃপক্ষ (এনটিআরসিএ) কর্তৃক প্রত্যয়ন পত্র রয়েছে। ফলে অভিযুক্ত শিক্ষকগণের কাগজ পত্রাদি তলবের প্রেক্ষিতে মাদ্রাসা শিক্ষা অধিদপ্তরে পাঠিয়েছে প্রতিষ্ঠান প্রধানরা।
সংশ্লিষ্ট মাদ্রাসা সুত্রে জানা গেছে, মাদ্রাসা শিক্ষা অধিদপ্তরের ১২ জানুয়ারী ২০২১ ইং তারিখের ৫৭.২৫.০০০০.০১০.০৭.০০৫.১৭.১০০৪ নং স্মারক সম্বলিত পত্র এবং তথ্যছক অনুযায়ী উপজেলার শাহবাজার ফাজিল মাদ্রাসার সহকারী মৌলভী আফরোজা খাতুন ইনডেক্স নং- ২০২৬৯২২ এবং সুজনের কুটি রুহুল আমনি দাখিল মাদ্রাসার সহকারী শিক্ষক (কম্পিউটার) মোছাঃ নাছরিন সুলতানা ইনডেক্স নং- ২০২৪৩৬৬ শিক্ষকদ্বয়ের নিবন্ধন সনদ জাল মর্মে এনটিআরসিএ কর্তৃক প্রত্যয়নপত্র রয়েছে। ফলে অভিযুক্ত শিক্ষকগণের অবৈধ নিয়োগ ও এমপিও ভুক্তির অভিযোগের তদন্ত গত ১৯ এপ্রিল-২০২১ ইং তারিখ সংশ্লিষ্ট প্রতিষ্ঠানে হওয়ার কথা ছিল। কিন্তু চলমান লকডাউনের কারনে মাদ্রাসা শিক্ষা অধিদপ্তরের পরিদর্শক মুহাম্মদ হোসাইন আসতে পারেনি। ফলে তার নির্দেশে অভিযুক্ত ওই দুই শিক্ষকের শিক্ষাগত যোগ্যতার সকল সনদ, এনটিআরসিএ সনদ, নিয়োগ, যোগদান ও এমপিও ভুক্তির সমুদয় কাগজপত্র সংশ্লিষ্ট মাদ্রাসার সুপারগণ ই-মেইলে প্রেরন করেন।
এ প্রসঙ্গে অভিযুক্ত শিক্ষক নাছরিন সুলতানার সাথে যোগাযোগ করা না গেলেও অপর শিক্ষক আফরোজা খাতুন মুঠোফোনে জানান, আমার সনদ জাল নয়, আমার প্রতিপক্ষরা আমার বিরুদ্ধে এসব ষড়যন্ত্র করছে।
শাহবাজার ফাজিল মাদ্রাসার সুপার মাওলানা আবুল কাশেম এবং সুজনের কুটি রুহুল আমিন দাখিল মাদ্রাসার সুপার মাওলানা মিজানুর রহমান জানান, মাদ্রাসা শিক্ষা অধিদপ্তরের পরিদর্শক মহোদয়ের নির্দেশে অভিযুক্ত শিক্ষকদ্বয়ের সমুদয় কাগজপত্র ই-মেইলে অধিদপ্তরে পাঠানো হয়েছে।
উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার আব্দুল হাই ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে জানান, জাল সনদের ব্যাপারে অধিকতর তদন্তের জন্য অভিযুক্তদের কাগজপত্র প্রতিষ্ঠানের সুপাররা অধিদপ্তরে পাঠিয়েছে।


ঢাকা,সারাদেশ বিভাগের সর্বোচ্চ পঠিত সংবাদ


_