বৃহস্পতিবার-২৯শে জুলাই, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ-১৪ই শ্রাবণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ,-রাত ৮:১৮

Reg No-36 (তথ্য মন্ত্রনালয় কর্তৃক নিবন্ধনকৃত)

শিরোনামঃ টিকা নেয়ার সর্বনিম্ন বয়সসীমা ২৫ বছর নির্ধারণ ১ আগস্ট থেকে চালু হচ্ছে চিলাহাটি-হলদিবাড়ি পণ্যবাহী ট্রেন চলাচল ঠাকুরগাঁওয়ে সাংবাদিকদের বিরুদ্ধে মামলা প্রত্যাহারের দাবিতে মানববন্ধন ঘোড়াঘাটে অসহায় মানুষের মাঝে সেনাবাহিনীর খাদ্যসামগ্রী বিতরণ গাইবান্ধার সাদুল্লাপুরে নদীতে ডুবে শিশুর মৃত্যু পার্বতীপুরে মাছ চাষে স্বাবলম্বী জাহাঙ্গীর আলম শেরপুরের ঝিনাইগাতীতে কৃষক বিশু হত্যা মামলায় গ্রেফতার- ১

লালমনিরহাটে ৪৮ ঘন্টার মধ্যে ক্লুলেস হত্যা মামলার রহস্য উদঘাটন গ্রেফতার – ২

প্রকাশ: সোমবার, ২৮ জুন, ২০২১ , ১:৫১ অপরাহ্ণ , বিভাগ :

মোঃ লাভলু শেখ লালমনিরহাট থেকে। লালমনিরহাটে ৪৮ ঘন্টার মধ্যে ক্লুলেস হত্যা মামলার রহস্য উদঘাটন গ্রেফতার -২ জন। দায় স্বীকার আদালতে প্রেরন। জানা গেছে, লালমনিরহাট সদর থানার ক্লুলেস হত্যা মামলার রহস্য উদঘাটন, জড়িত সকল আসামী গ্রেফতার, হত্যা কাজে ব্যবহৃত দা, কাঠের লাঠি, ভিকটিমের ব্যবহৃত মোবাইল ফোন, সেন্ডেলসহ সংশ্লিষ্ট আলামত উদ্ধার এবং বিজ্ঞ আদালতে আসামীদের স্বীকারোক্তী প্রদান। লালমনিরহাট সদর থানার মামলা নং-৭৩, তারিখ-২৪/০৬/২০২১ খ্রিঃ, ধারা-৩০২/২০১/৩৪ পেনাল কোড। লালমনিরহাট সদর উপজেলার গোকুন্ডা ইউনিয়নের ০৪নং ওয়ার্ডস্থ রতিপুর বসুনিয়া পাড়ার মোফাজ্জল হোসেন মোফার ছেলে জনৈক মমিনুল ইসলাম(৩৫), এর পাট ক্ষেতে জেলেখা ওরফে জেলে (২৪) নামের একজন মহিলার লাশ পড়নের বোরকাদ্বারা মুখমন্ডল পেচানো এবং কপালে ধারালো অস্ত্রের আঘাত করা অবস্থায় এলাকার লোকজন গত ২৪ জুন বিকাল অনুমান ০৩.০০ ঘটিকায় দেখতে পায়। প্রাথমিকভাবে ধারনা করা হয় যে, মহিলাকে হত্যা করে লাশগুম করার উদ্দেশ্য ঘটনাস্থলে অপরাধীরা লাশ ফেলে যায়। সংবাদ পেয়ে ঘটনাস্থলে লালমনিরহাট সদর থানা পুলিশ উপস্থিত হয় এবং লাশের সুরতহাল প্রতিবেদন প্রস্তুত করে ময়না তদন্তের ব্যবস্থা করা হয়। মৃতা জেলেখা ওরফে জেলে এর মা বাদী হয়ে অজ্ঞাতনামা আসামীদের বিরুদ্ধে থানায় এজাহার দায়ের করলে, সূত্রে বর্ণিত মামলাটি রুজু হয়। মামলাটি তদন্তকালে মৃত্যু জেলেখা ওরফে জেলে এর ব্যবহৃত মোবাইল নাম্বারের সিডিআর পর্যালোচনা করতঃ ঘটনার সাথে জড়িত লালমনিরহাট সদর উপজেলার রতিপুর মন্ডল পাড়া গ্রামের শ্রী দীনেশ চন্দ্র বমনের ছেলে আসামী ১। শ্রী বিধান চন্দ্র বর্মন(২৬) ও তিস্তা পাঙ্গাটারী গ্রামের শ্রী সুদশন বমনের ছেলে ২। শ্রী সুকুমার চন্দ্র বর্মন ওরফে হরতাল কে গ্রেফতার করা হয়। আসামীদ্বয় মামলার ঘটনার দায় স্বীকার করে। মৃত্যু জেলেখা প্রথম স্বামীর সহিত তালাক হয়। অতপর সে কুড়িগ্রাম জেলার মনজু নামক ব্যক্তির সহিত গত ইং ১৩/০৫/২০২১ তারিখ ২য় বিবাহ হয়। ২য় বিবাহের পর জেলেখা জানতে পারেন যে, সে তার ২য় স্বামীর ৬ষ্ঠতম স্ত্রী। সে কারণে ২য় স্বামীর সহিত সংসার করা হতে বিরত থাকিয়া অত্র থানাধীন তার মায়ের বাড়িতে বসবাস করিতে থাকে। জিজ্ঞাসাবাদে জানা যায় যে, মোবাইল ফোনে আসামী বিধান চন্দ্র রায়ের সহিত জেলেখার পরিচয় হয় এবং তাদের মধ্যে কথাবার্তা চলে। উক্ত আসামী বিধান চন্দ্র ও জেলেখার বাড়ি একই ইউনিয়নে পাশাপাশি গ্রামে। সেই সূত্রে বিধান এর স্ত্রী বাড়ীতে না থাকার সুযোগে ২১ জুন রাত্রী অনুমান ০৯.৩০ ঘটিকার সময় জেলেখা তার বাড়ীতে আসে এবং রাত্রী যাপন করে ভোরে চলে যায়। পরের দিন ২২ জুন রাত্রী অনুমান ১০.০০ ঘটিকার সময় সবার অজান্তে আবারো জেলেখা আসামী বিধানের বাড়ীতে আসিলে তাহাদের মধ্যে শারীরিক সম্পর্ক হয় এবং জেলেখা ওই রাতে বিধানের শয়ন ঘরে অবস্থান করে। ওই দিন দিবাগত ভোর অর্থাৎ ২৩ জুন ভোর অনুমান ০৪.৩০ ঘটিকার সময় জেলেখা আসামী বিধানকে ঘুম থেকে ডেকে তোলে এবং তাহাকে বিয়ে করে ঢাকায় নিয়ে যাবে কিনা জানতে চায়। আসামী বিধান পূর্বের ন্যায় তাহাকে বুঝানোর চেষ্টা করলে তাদের মধ্যে কথাকাটাকাটি শুরু হয়। একপর্যায়ে জেলেখা আশপাশের লোকজন কে ডাকাডাকি করার চেষ্টা করলে সকাল অনুমান ০৬.০০ ঘটিকার সময় আসামী বিধান তার ঘরে থাকা কাঠের ফলা (লাঠি) দিয়ে জেলেখার মাথার পিছন দিকে আঘাত করে। সে মাটিতে পড়ে গেলে আসামী বিধান তার ঘরে থাকা দাঁ এর ধারালো মাথা দিয়ে হত্যার উদ্দেশ্যে তার কপালে কোপ মারে এবং দাঁ এর ধারালোর বিপরীত পাশ দিয়ে গলায় চেপে ধরে জেলেখাকে হত্যা করিয়া মৃত্যু নিশ্চিত করে। পরে তাহার লাশ খাটের নিচে রেখে সকাল অনুমান ০৯.০০ ঘটিকার সময় কাঠমিস্ত্রির কাজে যায়। কাজ শেষে তার কর্মচারী গ্রেফতারকৃত ২নং আসামী শ্রী সুকুমার চন্দ্র বর্মন ওরফে হরতাল (২১)কে নিয়ে তার বাড়ীতে আসে এবং ২নং আসামীর সহযোগীতায় গ্রেফতারকৃত ১নং ও ২নং আসামী মিলিয়া লাশ গুম করার উদ্দেশ্যে ২৩ জুন রাত্রী অনুমান ১১.৩০ ঘটিকায় পার্শ্ববর্তী পাট ক্ষেতে জেলেখার লাশ ফেলিয়া আসে। গ্রেফতারকৃত উক্ত ১নং আসামী বিধান চন্দ্র রায় এর দেখানো ও সনাক্ত মতে তাহার বসত বাড়ী হইতে হত্যা কাজে ব্যবহৃত একটি লোহার তৈরী ধারালো দাঁ, একটি কাঠের ফলা (লাঠি), মৃত্যু জুলেখার ব্যবহৃত মোবাইল ফোন, স্যান্ডেলসহ মামলার সংশ্লিষ্ট আলামত উদ্ধার পূর্বক জব্দ করা হয়। উপরোক্ত ঘটনার বিষয়ে আসামীদ্বয় স্বেচ্ছায় দোষ স্বীকার করিলে বিজ্ঞ আদালত ২৭ জুন ফৌঃকাঃবিঃ ১৬৪ ধারামতে আসামীদ্বয়ের স্বীকারোক্তি মূলক জবানবন্দি রেকর্ড করেন। মামলাটি তদন্তাধীন। গত ২৭ জুন রোববার শেষ বিকেলে লালমনিরহাট পুলিশের অফিসিয়াল ফেসবুক থেকে এ তথ্য নিশ্চিত হওয়া গেছে।


করোনা ভাইরাস,রাজশাহী,সারাদেশ বিভাগের সর্বোচ্চ পঠিত সংবাদ


_