শনিবার-২৫শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ-১০ই আশ্বিন, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ,-রাত ৩:৫৬

Reg No-36 (তথ্য মন্ত্রনালয় কর্তৃক নিবন্ধনকৃত)

শিরোনামঃ কলা খাবেন যে কারণে আজ টেলিভিশন সাংবাদিকতার রূপকার মিশুক মুনীরের জন্মদিন স্কুলে এসে করোনায় আক্রান্ত হওয়ার প্রমাণ পাওয়া যায়নি: শিক্ষা উপমন্ত্রী বাংলাদেশ ‘উন্নয়নের বিস্ময়’ ফুটবলে ক্যারিশমা দেখিয়ে অষ্টমবারের মতো গিনেস বুকে বাংলাদেশের ফয়সাল ম্যাচ জয়ের পর ২৪ লাখ রুপি জরিমানা কলকাতার পাঁচবিবিতে বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হয়ে যুবকের মৃত্যু

কঠোর বিধিনিষেধে ২০০ কি.মি. সাইকেল চালিয়ে আসলেন ঢাকায়

প্রকাশ: শনিবার, ২৪ জুলাই, ২০২১ , ১০:৫৬ পূর্বাহ্ণ , বিভাগ :

মুক্তিনিউজ২৪.কম ডেস্ক: প্রয়োজনে সব বাধা টপকে চলার নামই জীবন। যতটুকু পথ খোলা, তা দিয়ে ছুটে চলাই জীবনের ধর্ম। সে কথাই মনে করিয়ে দিলেন রবিন নামের এক যুবক। কঠোর বিধিনিষেধে (লকডাউনে) জীবিকার তাগিদে যশোর থেকে তিনি প্রায় ২০০ কিলোমিটার বাইসাইকেল চালিয়ে ঢাকায় পৌঁছেছেন।

 

শনিবার (২৪ জুলাই) রাজধানীর প্রবেশদ্বার গাবতলী দিয়ে তিনি ঢাকায় ঢোকেন। পেশায় ইলেকট্রিক মিস্ত্রি রবিনের সঙ্গে কথা হয় এই প্রতিবেদকের।

 

রবিন বলেন, আমার বাড়ি চাঁদপুর। যশোরের কেশবপুরে গিয়েছিলাম অসুস্থ শাশুড়িকে দেখতে। ঈদের আগে বাসে করে গিয়েছি। কিন্তু ফেরার আগেই লকডাউন শুরু হয়ে গেল। তাই বিপাকে পড়েছি। কিন্তু জীবিকার তাগিদে না ফিরে উপায় নেই। তাই সাইকেল নিয়েই রওনা হয়েছি।

 

খোলা আকাশের নিচে পথে রাত কাটাতে হলেও রাজধানীতে ফিরে সরকারের বিধিনিষেধ নিয়ে অভিযোগ নেই রবিনের।

 

তিনি বলেন, অনেকেই ট্রাকে বা নানা অবৈধ উপায়ে ঢাকায় ফেরার চেষ্টা করছেন। আমি সেটা করিনি। সোজা পথে চলেছি। বৈধ উপায়ে ঢাকায় ফেরার যে সুযোগ ছিল সেটাই ব্যবহার করেছি। তাই যশোর থেকে সাইকেল চালিয়েই ফিরলাম। কষ্ট হয়েছে। রাস্তায় রাত কাটাতে হয়েছে। কিন্তু কোনো ‘গিল্টি ফিলিংস’ নাই।

 

রবিন আরও বলেন, পরিস্থিতি সব সময় অনুকূলে থাকবে না। কিন্তু কোনো না কোনো পথ খোলা থাকবে। বেআইনি পথ হয়ত সহজে গন্তব্যে পৌঁছে দেবে। কিন্তু বৈধ উপায়টি বেছে নিলে আপনার জীবনে শান্তি থাকবে।

 

তিনি বলেন, তাড়াহুড়া করিনি। দূরের গন্তব্য তাই ছুটেছি ধীরেসুস্থে। গতকাল রাতে দৌলতদিয়া ঘাটে পৌঁছেছি। চায়ের দোকানের বেঞ্চে ঘুমিয়েছি। ফ্রেশ হয়ে আবার রওনা করেছি আজ।

 

রবিন বলেন, লকডাউন চলছে। দেশে করোনার যে পরিস্থিতি এটা মানতে হবে। কিন্তু কাজ না করলে পেটে খাবার জুটবে না। মাস গেলে বাসা ভাড়া, সংসার খরচ কিছুই থেমে থাকে না। তাই রাস্তায় বের হয়েছি। স্বাস্থ্যবিধি মেনে যতটা সম্ভব নিজেকে ও অন্যকে সুরক্ষিত রেখে এখন কাজ করতে হবে। এবিএন


ঢাকা,সারাদেশ বিভাগের সর্বোচ্চ পঠিত সংবাদ


_