বৃহস্পতিবার-২৯শে জুলাই, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ-১৪ই শ্রাবণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ,-রাত ৯:৩৪

Reg No-36 (তথ্য মন্ত্রনালয় কর্তৃক নিবন্ধনকৃত)

শিরোনামঃ আড়াই কোটি টাকা ভ্যাট দিল ফেসবুক ১৮ বছর বয়সীদের টিকার নিবন্ধন ৮ আগস্ট থেকে বিধিনিষেধ: রাজধানীতে ৫৬৮ জন গ্রেফতার শ্রীমঙ্গলে করোনা আক্রান্ত হয়ে ভাই বোনের মৃত্যু শ্রীমঙ্গলে রাজাপুর গ্রাম থেকে গুইসাপ উদ্ধার, পরে বনে অবমুক্ত ডোমারের চিলাহাটি রেলষ্টেশন ট্রাইলে ভারতীয় ২টি পাওয়ার ইঞ্জিন। সুজানগর স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে করোনার টিকা গ্রহীতাদের উপচেপড়া ভীড়

করোনায় আদমদীঘিতে চরম সংকটে ডেকোরেটর,মাইক ব্যবসায়ীরা

প্রকাশ: বুধবার, ৭ জুলাই, ২০২১ , ১১:০৯ পূর্বাহ্ণ , বিভাগ :

এএফএম মমতাজুর রহমান আদমদীঘি (বগুড়া) প্রতিনিধি ঃ
দেশে করোনা মহামারি শুরু হবার পর থেকে সব ধরনের অনুষ্টান বন্ধ থাকায় ডেকোরেটর মালিক ও শ্রমিকদের আয় বন্ধ হয়ে গেছে। বগুড়া জেলার আদমদীঘি উপজেলার ডেকোরেটর, মালিক ব্যবসায়ীরা চরম সংকটে পড়েছেন। বেকার হয়ে পড়েছে উপজেলার কয়েকশত ডেকোরেটর ও মাইক ব্যবসায় নিয়োজিত শ্রমিকরা। তাঁরা এখন সরকারি প্রনোদনা বা সহায়তা চান। সব আয় বন্ধ থাকায় এই পেশার কোন কোন শ্রমিকরা পেশা পরিবর্তন করে দিনযাপন করছেন।
খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, আদমদীঘি উপজেলায় ৭৫ টির মতো ডেকোরেটর ও মাইকের দোকান আছে। এই ডেকোরেটর মালিকদের অধীনে ৪/৫ জন করে শ্রমিক থাকে। কাজ থাকুক না থাকুক তাঁদের প্রতিদিনের মজুরী দিতে হয়। দেশে বর্তমানে করোনোর কারণে সব ধরনের অনুষ্ঠান বন্ধ থাকায় এই দুই ব্যবসার মালিক, শ্রমিকদের আয় বন্ধ হয়ে যাওয়ায় তাঁরা চরম দারিদ্যের মধ্যে দিন কাটাচ্ছে।
সান্তাহার পৌর শহরের ৪নং ওয়ার্ডের নয়ন ডেকোরেটরের মালিক নয়ন হোসেন, সান্তাহার ষ্টেশন রোডের মাইক ব্যবসায়ী আনোয়ার হেসেন ৩ নং ওয়াডের আধুনিক ডেকোরেটরের মালিক রুস্তম হোসেন বলেন, আমরা শেষ হয়ে গেছি। এই করোনা শুরু হবার পর থেকে দেশে সব ধরনের অনুষ্ঠান বন্ধ থাকায় আমারা বর্তমানে কোন অর্ডার পাইনা। তাই আমাদের আয় বন্ধ হয়ে যাওয়ায় আমরা অন্ধকার দেখছি। দেশের মাননীয় প্রধানমন্ত্রী আমাদের জন্য কোন অনুদানের ব্যবস্থা না করলে আমাদের পথে বসতে হবে।
ডেকোরেটর ব্যবসায়ী মোঃ টুকু বলেন, এই বিপদের সময় কেউ আমাদের খোঁজ নেয় না। আপনাকে ও আপনার পেপারকে ধন্যবাদ। আমাদের বিষয়ে খোঁজ নেওয়ার জন্য। আমাদের অবস্থা খুবই খারাপ। আমাদের দোকানের শ্রমিকদের আয় বন্ধ হয়ে যাওয়ায়, পেশা বদল করে তারা মাস্কের ব্যবসা করছে। মামুন ডকোরেটরের মোঃ মামুন বলেন, বিয়ে, রাজনৈতিক সভা, বিভিন্ন পণ্যের প্রচার কাজে আমাদের আয় নির্ভর করে। বর্তমানে সব অনুষ্ঠান বন্ধ থাকায় কোন রকম অর্ডার না থাকায় খুব কষ্ঠে আছি।
আদমদীঘি উপজেলা ডেকোরেটর মালিক সমিতির সভাপতি ও মামুন ডেকোটরের মালিক মোঃ নিজামউদ্দীন মন্ডল বলেন, গত বছর আমাদের সমিতি থেকে প্রণোদনা চেয়ে ইউএনও মহাদয়ের কাছে আমরা একটি আবেদনপত্র পেশ করেছিলাম। আমরা বর্তমানে খুবই নাজুক অবস্থায় আছি। সরকার যেন আমাদের আর্থিক সহায়তা প্রদান করেন।
আদমদীঘি উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সীমা পারভিন এই প্রতিবেদককে বলেন, উনাদের আবেদন আমরা যথাযথ দপ্তরে পৌঁছে দিয়েছি। আলাদা করে কোন পেশাজীবিদের জন্য প্রনোদনা আসেনি। আসলে অবশ্যই তাঁরা পাবেন। বর্তমান সরকার এই বিষয়ে আন্তরিক।


রাজশাহী,সারাদেশ বিভাগের সর্বোচ্চ পঠিত সংবাদ


_