শুক্রবার-২৪শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ-৯ই আশ্বিন, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ,-রাত ৩:৫৮

Reg No-36 (তথ্য মন্ত্রনালয় কর্তৃক নিবন্ধনকৃত)

শিরোনামঃ মুক্তিনিউজ২৪.কম ডেস্ক: ভোক্তা প্রতারণা বন্ধে প্রতিযোগিতা কমিশনকে রাষ্ট্রপতির নির্দেশ ২৬ বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়কে ইউজিসির সতর্কতা সারা দেশের সঙ্গে ঢাকার রেল যোগাযোগ স্বাভাবিক ১৪ নভেম্বর থেকে শুরু দাখিল পরীক্ষা গাইবান্ধা জেলা যুবলীগের বর্ধিত সভা অনুষ্ঠিত বাতিল হচ্ছে ২১০ পত্রিকার ডিক্লারেশন

ঠাকুরগাঁওয়ে ২হাজার অসহায় পরিবারের মুখে হাসিঁ ফোটালো কালের কণ্ঠ শুভসংঘের ত্রাণ

প্রকাশ: বুধবার, ৭ জুলাই, ২০২১ , ৯:৪৩ পূর্বাহ্ণ , বিভাগ :

মুক্তিনিউজ২৪.কম ডেস্ক: “শুভ কাজে, সাবার পাশে” এই স্লোগানকে সামনে রেখে ঠাকুরগাঁওয়ে ২হাজার অসহায়, হতদরিদ্র পরিবারের মাঝে ত্রান সামগ্রী বিতরণ করলো কালের কন্ঠ শুভ সংঘ।

বুধবার বসুন্ধরা গ্রæপের সহযোগীতায় ও কালের কণ্ঠ শুভ সংঘ ঠাকুরগাঁও জেলা শাখার আয়োজনে শহরের জেলা স্কুল বড় মাঠ, গার্লস স্কুল মাঠ সহ আরো কয়েকস্থানে স্বাস্থ্যবিধি মেনে ২হাজার ত্রানের প্যাকেট বিতরণ করা হয়।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন ঠাকুরগাঁওয়ের জেলা প্রশাসক মো. মাহবুবুর রহমান, পুলিশ সুপার মো. জাহাঙ্গীর আলম, পৌর মেয়র আঞ্জুমান আরা বন্যা, কালের কণ্ঠ শুভসংঘের পরিচালক জাকারিয়া জামান, কেন্দ্রীয় কমিটির সাধারণ সম্পাদক শামীম আল মামুন, সদস্য শরীফ মাহ্দী আশরাফ জীবন, ঠাকুরগাঁও জেলা শুভসংঘের সভাপতি শফিকুল ইসলাম, সহ-সভাপতি তাপস দেবনাথ, সাধারণ সম্পাদক রাশেদুল আলমসহ জেলার শুভসংঘের অন্যান্য সদস্যরা।

ত্রাণ সহায়তা পাওয়া উপকারভোগী মাজেদা খাতুন বলেন, ‘মুই গরিব মানুষ মুই মানুষের বাড়ি জন দেও। দিন আনু দিন খাও, বসে থাকিলে মোক কেহ খিলাবেনি। কিন্তু লকডাউনের তাহে এলা মানুষের বাড়িত কাজ করিবা পারুনা। তিন-চারদিন থেকে একবেলা খাইলে আর একবেলা না খায় থাকিবা হয়। এইলা সাহায্য দিয়া মোর ১০ দিন চলে যাবে।’

আরেক ভুক্তভোগী বিধবা রমেলা বেওয়া বলেন, দুই ছেলে থাকলেও তাকে দেখে না কেউ। ছাগল পালন করেই পেট চালান তিনি। পান না কারো থেকে কোনো ধরনের সাহায্য। বসুন্ধরার ত্রাণ পেয়ে তিনি বলেন, ‘এইলা খেতে খেতে আবার কিছু জোগার করমু। হামরা বসুন্ধরা গ্রুপের তায় দোয়া করিমু।’

ঠাকুরগাঁও জেলার পুলিশ সুপার মো. জাহাঙ্গীর আলম বলেন, আমাদের জেলায় প্রতিদিনই করোনা সংক্রমণ বাড়ছে। আপনারা আমাদেরকে করোনা মোকাবেলা করতে সহায়তা করুন। আপনারা সহায়তা না করলে আমরা করোনা মোকাবেলা করতে পারবো না। স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলবেন। যারা এই ত্রাণ সহায়তা দিয়েছে তাদের অনেক ধন্যবাদ।

ত্রান বিতরণ অনুষ্ঠানে জেলা প্রশাসক মো. মাহবুবুর রহমান বলেন, করোনা মোকাবেলায় আমাদের বাধ্য হয়ে কঠিন হতে হয়। করোনা এমন একটি রোগ যেটা অতিসংক্রমণ। এটা বেশি মানুষের দেহে ছড়িয়ে পড়লে মোকাবেলা করা সম্ভব হবে না। তাই করোনা অতিরিক্ত মাত্রায় ছড়ানোর আগে আমরা আপনাদেরকে ঘরে রাখার জন্য চেষ্টা করছি। বসুন্ধরা গ্রুপ আজ আপনাদেরকে যে খাদ্যদ্রব্য দিল, তা দিয়ে আপনারা কিছুদিন খেতে পারবেন। এই সময় আপনারা লকডাউনের মধ্যে অযথা বাইরে ঘোরাঘুরি করবেন না। ঘরে থাকবেন।


রংপুর,সারাদেশ বিভাগের সর্বোচ্চ পঠিত সংবাদ


_