রবিবার-১৯শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ-৪ঠা আশ্বিন, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ,-সকাল ১১:৪১

Reg No-36 (তথ্য মন্ত্রনালয় কর্তৃক নিবন্ধনকৃত)

শিরোনামঃ বোহোমের জালে বায়ার্নের গোল উৎসব বার্নলির মাঠে আর্সেনালের জয় যেসব জুস খেলে মিলবে সুন্দর ও দাগহীন উজ্জ্বল ত্বক দ্রুত হেঁচকি উঠা বন্ধের ঘরোয়া উপায় গরম ভাতে ঝাল ঝাল টুনা কারি আজ নায়ক সালমান শাহ’র জন্মদিন, বেঁচে থাকলে বয়স হতো ৫০ আবুধাবিতে প্রবেশে পিসিআর টেস্ট লাগবে না

বরিশালে গর্ভবতী নারীদের জন্য চালু হচ্ছে করোনা ইউনিট

প্রকাশ: বৃহস্পতিবার, ৫ আগস্ট, ২০২১ , ১২:৩০ অপরাহ্ণ , বিভাগ :

বরিশাল ব্যুরো॥ বরিশাল নগরীতে করোনাভাইরাসে (ঈড়ৎড়হধারৎঁং) আক্রন্ত গর্ভবতী মায়েদের চিকিৎসায় ২০ শয্যাবিশিষ্ট স্বতন্ত্র ইউনিট চালুর প্রস্তুতি নিয়েছে স্বাস্থ্য বিভাগ। নগরীর কালিবাড়ী রোডে মা ও শিশু কল্যাণ কেন্দ্রে চলতি সপ্তাহেই রোগী ভর্তি কার্যক্রম শুরু হবে। যেখানে করোনা আক্রান্ত গর্ভবতী নারীদের চিকিৎসার পাশাপাশি সিজারিয়ান অপারেশন করা হবে বলে জানিয়েছেন স্বাস্থ্যবিভাগ সংশ্লিষ্টরা। এছাড়াও বরিশাল জেনারেল (সদর) হাসপাতালের ২২ শয্যার করোনা ইউনিটটিকে ১০০ শয্যার ডেডিকেটেড করোনা ইউনিট হিসেবে ঘোষণা করা হয়েছে। এ কারণে ওই হাসপাতালের বহিঃর্বিভাগ ব্যতিত অন্য সকল বিভাগ বরিশাল শের-ই বাংলা চিকিৎসা মহাবিদ্যালয় (শেবাচিম) হাসপাতালে স্থানান্তর করা হয়েছে।
এর বাইরে বরিশাল জেলার ৯টি উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ২০টি করে মোট ১৮০ শয্যার পৃথক ৯টি করোনা ইউনিট চালুর করা হচ্ছে। এর পরেও করোনা পরিস্থিতি আরো ভয়াবহ রূপ নিলে সে েেত্র পরিস্থিতি সামাল দিতে সাড়ে তিন শথ শয্যার পৃথক দুটি বেসরকারি হাসপাতালকে করোনা ডেডিকেটেড হাসপাতাল হিসেবে কার্যক্রম পরিচালনার সিদ্ধান্ত হয়েছে।
বরিশাল জেলা প্রশাসনের আয়োজনে স্বাস্থ্য বিভাগের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের সাথে এক ভার্চুয়াল মতবিনিময় সভায় এই সিদ্ধান্তগুলো গৃহীত হয়েছে বলে জানিয়েছেন বরিশাল বিভাগীয় স্বাস্থ্য পরিচালক এবং পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ও শেবাচিম হাসপাতাল পরিচালক।
বরিশাল শেবাচিম হাসপাতাল পরিচালক ডা. এইচ.এম সাইফুল ইসলাম জানিয়েছেন, ‘বরিশাল অঞ্চলে করোনা পরিস্থিতি ভয়াবহ রূপ নিচ্ছে। প্রতিদিন আক্রান্ত এবং মৃতের সংখ্যা বৃদ্ধি পাচ্ছে। রোগীর চাপ সামাল দিতে ৫০ শয্যা থেকে তিন শথ শয্যায় উন্নীত করা হয়েছে শেবাচিম হাসপাতালের করোনা ইউনিটকে। এর পরেও চাপ সামলানো সম্ভব হচ্ছে না। রোগীর চাপ বেশি হওয়ায় অক্সিজেন সাপোর্টেও ঝামেলা হচ্ছে।
তিনি বলেন, ‘শেবাচিম হাসপাতালে করোনায় আক্রান্ত গর্ভবতী মায়েদের চিকিৎসা এবং সিজারিয়ানে অনেক সমস্যা হচ্ছে। কারণ করোনা আক্রান্ত গর্ভবতী একজন মায়ের সিজারিয়ানের পরে ১৪ দিন বন্ধ রাখতে হচ্ছে ওই অপারেশন থিয়েটার। এ কারণে অন্য রোগীদের ঝামেলা এবং সেবা থেকে বঞ্চিত হচ্ছে। এ বিষয়টি মাথায় রেখেই বরিশাল নগরীর কালিবাড়ী রোডের মা ও শিশু কল্যাণ কেন্দ্রে করোনা আক্রান্ত গর্ভবতী মায়েদের সার্বিক চিকিৎসার জন্য ২০ শয্যার করোনা ইউনিট খোলার সিদ্ধান্ত হয়েছে। তবে কাগজে-কলমে ২০টি শয্যা থাকলেও সেখানে সর্বোচ্চ ৫০/৬০ জন রোগীর চিকিৎসা দেয়া সম্ভব হবে। এখানে গর্ভবতী ছাড়াও করোনা আক্রান্ত সাধারণ নারীরাও ভর্তি হয়ে চিকিৎসা নিতে পারবেন। গর্ভবতী মায়েদের চিকিৎসা বা অস্ত্রপচারের সুবিধার্থে প্রয়োজনে শেবাচিম হাসপাতালের চিকিৎসকরা সেখানে গিয়ে চিকিৎসা দিয়ে আসবে।


বরিশাল,সারাদেশ বিভাগের সর্বোচ্চ পঠিত সংবাদ


_