বৃহস্পতিবার-১৬ই সেপ্টেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ-১লা আশ্বিন, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ,-রাত ৯:২৬

Reg No-36 (তথ্য মন্ত্রনালয় কর্তৃক নিবন্ধনকৃত)

শিরোনামঃ সুপারিশপ্রাপ্তদের ৩০ সেপ্টেম্বরের মধ্যে ভেরিফিকেশন ফরম পূরণের নির্দেশ টি-টোয়েন্টি দলের নেতৃত্ব ছাড়ছেন কোহলি গণমাধ্যমে শৃঙ্খলা আনার দাবি সাংবাদিকদেরই : তথ্য ও সম্প্রচারমন্ত্রী নির্বাচনী এলাকায় ২০ সেপ্টেম্বর ব্যাংক বন্ধ পেশাদারিত্বের সাথে দায়িত্ব পালন করতে হবে : ডিএমপি কমিশনার আজও ৫১ জনের মৃত্যু বিএনপি অরাজকতা করলে কঠোর হাতে দমন: কৃষিমন্ত্রী

বস রাগী হলে তাকে মানিয়ে চলার কৌশল

প্রকাশ: সোমবার, ১৩ সেপ্টেম্বর, ২০২১ , ১১:১৪ পূর্বাহ্ণ , বিভাগ :

মুক্তিনিউজ২৪.কম ডেস্ক: অফিসের বস বলে কথা, একটু তো রাগী হবেই। তবে আপনার বস যদি প্রচণ্ড রাগী হয় তাহলে তার সঙ্গে তাল মিলিয়ে চলাটা আপনার জন্য একটু কঠিন হয়ে যেতে পারে। আর তার রাগের মাথার একটি সিদ্ধান্ত আপনার জীবনে অনেক বড় প্রভাব ফেলতে পারে। তবে পেশাগত জীবনে বসের সঙ্গে সুন্দর একটা সম্পর্ক বজায় রেখে চলাই উত্তম। আপনার বস রাগী হলেও তাকে সামলেই আপনাকে চলতে হবে। তার সঙ্গে আপনার আচরণ এমন হবে যেন সম্পর্কটি কখনো মন খারাপের পর্যায়ে না চলে যায়।

চলুন জেনে নেই কোন আচরণগুলো এক্ষেত্রে বেশি কার্যকরী হবে-

তার মতামতের যথার্থ মূল্যায়ন

বসের পরামর্শ অনুযায়ী চললে তার রাগের কারণ হওয়ার দরকার পড়বে না। তিনি যখন দেখবেন যে আপনি তার মতামতের পূর্ণ মূল্যায়ন করছেন তখন আপনার প্রতি রাগের বদলে তার একটি ইতিবাচক মনোভাব তৈরি হতে থাকবে। তাই আপনি যার অধীনে কাজ করছেন, তার মনের মতো করে কাজগুলো সম্পন্ন করার চেষ্টা করুন। পাশাপাশি নিজের কোনো মতামত থাকলে তা সুযোগ বুঝে বসের সঙ্গে আলাপ করুন যখন তার মন ভালো থাকবে। তবে অবশ্যই যখন তার মন মেজাজ খারাপ থাকবে,তখন নয়।

তার কথার প্রতি মনোযোগ বাড়িয়ে দিন

প্রতিষ্ঠানের স্বার্থে অবশ্যই বসের মতের সঙ্গে মিল রেখেই চলতে হবে। তাই বস যখন কিছু বলবেন তাকে বুঝতে দিন যে আপনি তার কথা সম্পূর্ন মনোযোগ দিয়ে শুনছেন। আপনার বস যদি রেগে গিয়েও কথা বলেন তবে আপনি তাৎক্ষণিক কোনো প্রতিক্রিয়া না দেখিয়ে মনোযোগ দিয়ে শুনুন এবং বোঝার চেষ্টা করুন। যদিও অনেক সময় এটি কিছুটা কষ্টকর হয়ে যায়, তবে সেটার কোন প্রতিক্রিয়া দেখানো যাবেনা।তবে আপনার যদি কিছু বলার থাকে তবে তার বলা শেষ হলে তবে তাকে বুঝিয়ে বলতে পারেন আপনার বিষয়টি।

তার সঙ্গে আলোচনা করুন

বস যখন শান্ত থাকবেন তখন তার সঙ্গে কথা বলুন এবং জিজ্ঞাসা করুন আপনি কীভাবে কাজ করলে তা সঠিক হবে। যদি তিনি কোনো পরামর্শ না দেন, তাহলে আপনি আপনার উপায়গুলো তাকে ভালোভাবে বোঝান। একবার তিনি সেগুলোর যেকোনো একটিতে একমত হয়ে গেলে সেই কাজে লেগে পড়ুন। আপনার বস নিঃসন্দেহে আপনার থেকে অভিজ্ঞতাসম্পন্ন। তাই আপনার বুদ্ধিমত্তা এবং তার অভিজ্ঞতার সমন্বয় ঘটলে তার ফল ইতিবাচক হবে।

সঠিক শব্দ ব্যবহার

অনেক সময় শব্দের ভুল ব্যবহারে কথার অর্থ অনেকটাই বদলে যায়। তাই বসের সঙ্গে যেকোনো আলাপ করার সময় শব্দ ব্যবহারে সচেতন থাকুন। তিনি যে কথাগুলো বলছেন তা আপনি বুঝতে পারছেন কি না সেটিও বুঝতে দিন। ইতিবাচক থেকে কথা বলুন। বস রাগী হলেই তাকে সারাক্ষণ শত্রু ভাববেন না বা অন্য চোঁখে দেখবেন না। কারণ আপনারা দুজনই একই প্রতিষ্ঠানের কর্মী এবং সে আপনার বস সেটা অবশ্যই মাথায় রাখতে হবে। সৌহার্দ্যপূর্ণ সম্পর্ক না থাকলে কাজ এগিয়ে নেওয়া মুশকিল হয়ে যাবে। তার সঙ্গে কথা বলার সময় নেতিবাচক শব্দ ব্যবহার এড়িয়ে চলুন।

দুঃখ প্রকাশ করার মানসিকতা রাখা

অনেক সময় বস রাগারাগি করলেও তার জন্য হয়তো আপনার আচরণই দায়ী। তাই তাকে উত্তেজিত করার জন্য ক্ষমাপ্রার্থী হোন। যদি আপনি ভুল করে থাকেন, তাহলে এটি কাজ করবে। যদি ভুল না করে থাকেন তবুও এটি কাজ করবে কারণ তিনি আপনার কাছে এটি প্রত্যাশা করছে। দুঃখ প্রকাশ বা ক্ষমা চাওয়ার অভ্যাস আপনাকে আরও পরিপূর্ণ হতে সাহায্য করবে। সূত্র: টাইমস অব ইন্ডিয়া


লাইফস্টাইল বিভাগের সর্বোচ্চ পঠিত সংবাদ


_