মঙ্গলবার-২৫শে জানুয়ারি, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ-১১ই মাঘ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ,-সকাল ৮:২৭

Reg No-36 (তথ্য মন্ত্রনালয় কর্তৃক নিবন্ধনকৃত)

শিরোনামঃ ঠাকুরগাঁওয়ে কাঠ পোড়ানোর অভিযোগে ইটভাটার তিন মালিককে জরিমানা ও মামলা পার্বতীপুরে রেলের অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ অভিযান সাড়ে ১৩লাখ টাকা জরিমানা আদায় ঢাকায় অমিক্রনের আধিপত্য, ৬৯ শতাংশই এই ভ্যারিয়ান্টে আক্রান্ত করোনায় আরও ১৫ মৃত্যু, শনাক্ত ১৪,৮২৮ আকাশছোঁয়া পারিশ্রমিকে আল্লুকে সিনেমার প্রস্তাব স্বামী-সন্তানসহ করোনায় আক্রান্ত অভিনেত্রী শার্লিন ফারজানা বিধিনিষেধ বাড়বে কিনা সিদ্ধান্ত ৭ দিন পর : জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী

দিনাজপুর হানাদার মুক্ত দিবস আজ

প্রকাশ: মঙ্গলবার, ১৪ ডিসেম্বর, ২০২১ , ৬:৫৬ পূর্বাহ্ণ , বিভাগ :
মুক্তিনিউজ২৪.কম ডেস্ক: আজ ১৪ ডিসেম্বর দিনাজপুর হানাদার মুক্ত দিবস। ১৯৭১ সালের এই দিনে দিনাজপুর সদর, বিরল ও খানসামা হানাদার মুক্ত হয়। দিবসটি উপলক্ষ্যে স্থানীয় মুক্তিযুদ্ধারা, মুক্তিযুদ্ধা স্মৃতিস্থম্ভে পুস্প অর্পণ, র‌্যালি, ডুকমেন্টারী প্রদর্শন ও আলোচনা সভার আয়োজন করেছেন ।

হানাদার মুক্ত দিবস উপলক্ষ্যে যথাযোগ্য মর্যাদায় দিনটি পালনের জন্য বিভিন্ন কর্মসূচি গ্রহণ করেছে স্থানীয় মুক্তিযোদ্ধা ফোরাম।

বীর মুক্তিযোদ্ধা ফরহাদ হোসেন দালিলিক ভাবে প্রমাণ করেন, দিনাজপুর মুক্ত হয়েছিল ১৪ ডিসেম্বর ১৯৭১। তৎকালীন ৭নং সেক্টরের চেয়ারম্যান এবং সংবিধান প্রণয়ন কমিটির সদস্য অ্যাড. এম আব্দুর রহিম এদিন স্বাধীন বাংলাদেশের ১৮ ডিসেম্বর তারিখে জাতীয় পতাকা উত্তোলন করেন।

১৯৭১ সালের ডিসেম্বর মাসের শুরুতেই মুক্তিযোদ্ধাদের হামলার মুখে পাকিস্তানি সেনারা কোণঠাসা হয়ে পড়ে। ৮ ডিসেম্বর চিরিরবন্দরে মুক্তিযোদ্ধারা ৫১ জন রাজাকারকে বন্দি করে।

১০ ডিসেম্বর মুক্তিযোদ্ধারা বিরলে পাকিস্তানি সেনাদের ঘাঁটির ওপর হামলা চালান। ১১ ডিসেম্বর বিরলে হানাদার বাহিনী হামলা চালিয়ে বহু নিরীহ মানুষকে হত্যা করে চলে যায়। ১৩ ডিসেম্বর পাকিস্তানি সেনারা বিরলের ৪৩ জন নিরীহ মানুষকে হত্যা করে সৈয়দপুরের দিকে রওনা হয়।

১৪ ডিসেম্বর বিরল উপজেলার মঙ্গলপুরে মুক্তিযোদ্ধাদের সঙ্গে মিত্রবাহিনী যোগ দেয়। এরপর ওইদিনই হানাদাররা কাঞ্চন নদীর রেলওয়ের লোহার ব্রিজ, ভুষিরবন্দর ব্রিজ, মোহনপুর ব্রিজ, দিনাজপুর টেলিফোন এক্সচেঞ্জ ভেঙে দেয়াসহ অনেক ক্ষতি করে।

১৩ ডিসেম্বরে মিত্রবাহিনী ও মুক্তিযোদ্ধাদের আক্রমণে কোনঠাসা হয়ে পাকিস্তানি সেনারা সৈয়দপুরে চলে যায়। ১৪ ডিসেম্বরেই দিনাজপুর মুক্ত হয়।

দিনাজপুর জেলা সেক্টর কমান্ডার ফোরামের আহ্বায়ক আবুল কালাম আজাদ জানান, চারদিক থেকে মুক্তিযুদ্ধা আর মিত্রবাহিনী ১৪ই ডিসেম্বর দিনাজপুর শহরের বাহাদার বাজারে এসে বিজয় উল্লাস করতে থাকেন। তবে আনুষ্ঠানিকভাবে ১৮ ডিসেম্বর স্বাধীন বাংলাদেশের পতাকা উত্তোলন হয়েছিল ও প্রশাসন চালু হয়েছিল।

দিনাজপুর মুক্তিযোদ্ধা সংসদের সাবেক কমান্ডার মকসেদ আলী মঙ্গলীয়া বলেন, দিনাজপুর একটি সীমান্তবর্তী জেলা। মুক্তিযোদ্ধারা সেই সময়ে বিভিন্ন দিক দিয়ে দিনাজপুরে প্রবেশ করেন। কেউ আগে প্রবেশ করতে পেরেছেন আবার কেউ প্রবেশ করতে পারেননি। প্রথম মুক্তি বাহিনীরা ১৪ ডিসেম্বর প্রবেশ করায় ১৪ ডিসেম্বর শত্রু মুক্ত হয়।


রংপুর,সারাদেশ বিভাগের সর্বোচ্চ পঠিত সংবাদ


_