তথ্য মন্ত্রনালয় কর্তৃক নিবন্ধনকৃত, যার রেজি নং-৩৬

শনিবার, ০১ অক্টোবর ২০২২, ০৩:১৪ অপরাহ্ন

রোমাঞ্চকর ম্যাচে ডর্টমুন্ডকে হারাল বায়ার্ন

  • প্রকাশ রবিবার, ৫ ডিসেম্বর, ২০২১, ৬.১৯ এএম
  • ৪৩ বার ভিউ হয়েছে

মুক্তিনিউজ২৪.কম ডেস্ক: ম্যাচের শুরুতেই বায়ার্ন মিউনিখের জালে বল! প্রতিপক্ষের ছোট্ট ভুলে তারা পাল্টা জবাব দিল খানিক বাদেই। রোমাঞ্চকর শুরুর পর এভাবেই চলল আক্রমণ প্রতিআক্রমণ, গোল পাল্টাগোল। গতিময় ফুটবলে বরুশিয়া ডর্টমুন্ড সম্ভাবনা জাগাল বটে, তবে নিজেদের ভুলে পেরে উঠল না। শনিবার বুন্দেসলিগায় দুই শিরোপাপ্রত্যাশীর লড়াইয়ে ৩-২ গোলে জিতেছে বায়ার্ন।

ম্যাচের ৫ম মিনিটে দারুণ এক গোলে এগিয়ে যায় ডর্টমুন্ড। বাঁ দিক থেকে সতীর্থের বাড়ানো ক্রস ডান পায়ে নিয়ন্ত্রণে নিয়ে ডি-বক্সে ঢুকে একজনকে কাটিয়ে ও আরেকজনকে এড়িয়ে জোরালো শটে গোলটি করেন ব্রান্ডট। ১০ গজ দূর থেকে তার নেওয়া শট ঠেকানোর সুযোগই পাননি মানুয়েল নয়ার। পাল্টা জবাব দিতে একটুও দেরি করেনি বায়ার্ন। মাঝমাঠে একটু আয়েশিভাবে বল ক্লিয়ার করতে গিয়ে ভুলটা করে বসেন মাটস হুমেলস। তার শটে বল সামনে দাঁড়ানো টমাস মুলারের পায়ে লেগে চলে যায় ডর্টমুন্ডের সীমানায়। দারুণ ক্ষিপ্রতায় এগিয়ে উঁচু বলে হেড করেন মুলার। তিনি নিয়ন্ত্রণে নিতে না পারলেও পেছনে ছুটে আসা লেভানদোভস্কি বল ধরে কাছের পোস্ট ধরে জালে পাঠান।

আক্রমণ পাল্টাআক্রমণের জমজমাট লড়াইয়ের ২৯তম মিনিটে আবারও এগিয়ে যেতে পারতো ডর্টমুন্ড। তবে প্রতিআক্রমণে সবাইকে পেছনে ফেলে বক্সে ঢোকা হলান্ডের কোনাকুনি শটে বল দূরের পোস্ট ঘেঁষে বেরিয়ে যায়।

বল দখলের পাশাপাশি প্রথমার্ধে আক্রমণে এগিয়ে থাকা বায়ার্ন ৪৪তম মিনিটে এগিয়ে যায়। এই গোলেও দায় আছে স্বাগতিক রক্ষণের। দলকে বিপদমুক্ত করতে গিয়ে ডিফেন্ডার মানুয়েল আকানজির নেওয়া শট তার সতীর্থের পায়ে লেগে চলে যায় কোমানের পায়ে। ডান পায়ের জোরালো শটে গোলটি করেন ফরাসি এই ফরোয়ার্ড।

দ্বিতীয়ার্ধে তৃতীয় মিনিটে বড় ভুল করে বসেন বায়ার্নের ডিফেন্ডার উপামেকানো। ডি-বক্সে তিনি বুক দিয়ে বল নিয়ন্ত্রণে নিতে গিয়ে উল্টো জুড বেলিংহ্যামের পায়ে তুলে দেন। তার পাস ধরে উঁচু কোনাকুনি দূরের পোস্ট দিয়ে স্কোরলাইন ২-২ করেন হলান্ড।

সমতায় ফিরে প্রবল চাপ বাড়ায় ডর্টমুন্ড। অনেকটা সময় রক্ষণ সামলাতেই ব্যস্ত থাকে বায়ার্ন। তবে এর মাঝেই তাদের এক পাল্টা আক্রমণে ডর্টমুন্ডের ডি-বক্সে হুমেলসের হাতে বল লাগলে ভিএআরের সাহায্যে পেনাল্টির বাঁশি বাজান রেফারি। সফল স্পট কিকে দলকে আবারও এগিয়ে নেন লেভানদোভস্কি।

দ্বিতীয়ার্ধের শুরুতে বায়ার্নের ডি-বক্সে প্রতিপক্ষের চ্যালেঞ্জে মার্কো রয়েস পড়ে গেলে পেনাল্টির জোরালো আবেদন করে ডর্টমুন্ডের কোচ-খেলোয়াড়রা। ধারাভাষ্যকারও বারবার বলতে থাকেন, পেনাল্টি হতে পারে। তবে ভিএআরে দ্বিতীয়বার যাচাইও করা হয়নি তখন, তাদের চোখেমুখে ছিল অসন্তোষ। সেখানে এ যাত্রায় ভিএআরে দেখেই পেনাল্টি দেওয়ায় ডাগআউটে ক্ষোভ ঝাড়েন ডর্টমুন্ড কোচ। তাকে দ্বিতীয় হলুদ কার্ড দেখিয়ে বের করে দেন রেফারি।

কয়েক দফায় খেলা বন্ধ থাকায় নির্ধারিত ৯০ মিনিটের পরও ১১ মিনিট যোগ করা সময খেলা চলে। সেখানে ম্যাচের গতি যেন আরও বেড়ে যায়। দেড় মিনিটের মতো বাকি থাকতে একটি কর্নারের সময় ডর্টমুন্ডের গোলরক্ষকও উঠে আসেন আক্রমণে, সেই সুযোগে মাঝমাঠে বল পেয়ে প্রায় ৩৫ গজ দূর থেকে ফাঁকা পোস্টে শট নেন তোলিসো। কিন্তু বল লক্ষ্যে রাখতে পারেননি তিনি।

১৪ ম্যাচে ১১ জয় ও এক ড্রয়ে ৩৪ পয়েন্ট নিয়ে শীর্ষে আছে বায়ার্ন। ১০ জয়ে ৪ পয়েন্ট কম নিয়ে দুইয়ে বরুশিয়া ডর্টমুন্ড। সূত্রঃ এবিএন

শেয়ার করুন

এই বিভাগের আরও সংবাদ
© All rights reserved © 2022 Muktinews24.com © এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি। সকল স্বত্ব www.muktinews24.com কর্তৃক সংরক্ষিত.
Technical Support Moinul Islam