তথ্য মন্ত্রনালয় কর্তৃক নিবন্ধনকৃত, যার রেজি নং-৩৬

মঙ্গলবার, ০৬ ডিসেম্বর ২০২২, ০৯:৩৭ পূর্বাহ্ন
সদ্য সংবাদ :
দক্ষিণ কোরিয়াকে উড়িয়ে দিয়ে কোয়ার্টার ফাইনালের টিকিট কাটল ব্রাজিল রাস্তায় সমাবেশের অনুমতি পাবে না বিএনপি : ডিএমপি কমিশনার উত্তীর্ণ শিক্ষার্থীদের ভর্তি পরীক্ষায় ব্যর্থ হওয়ার সুযোগ নেই নন্দীগ্রামে কমছে আলুর চাষ, বাড়ছে সরিষা ১৭ বছরে মৌলভীবাজার জেলার  ২ লক্ষ ৫ হাজার মানুষের বিদেশে কর্মসংস্থান,রাখছেন  দেশের অর্থনীতিতে রাখছেন ভূমিকা পরমাণু বিজ্ঞানী ওয়াজেদ মিয়ার কবর জিয়ারত করলেন রংপুরের নবাগত জেলা প্রশাসক ঘোড়াঘাটে রাষ্ট্রীয় মর্যাদায় মুক্তিযোদ্ধা এডভোকেট কাজেম উদ্দিন আহমেদের দাফন সম্পন্ন আজ মঙ্গলবার  ৬ ডিসেম্বর লালমনিরহাট মুক্ত দিবস ২৪ বছরের তরুণের সঙ্গে শাকিরার প্রেম! ৬ ডিসেম্বর কুড়িগ্রাম হানাদার মুক্ত দিবস 

আমি হ্যাপি, তারাও অনেক হ্যাপি: তাসনুভা তিশা

  • প্রকাশ সোমবার, ১৭ জানুয়ারী, ২০২২, ৫.৩৮ এএম
  • ৬৭ বার ভিউ হয়েছে

মুক্তিনিউজ২৪.কম ডেস্কঃ ‘মাত্র অল্প সময়ের পরিচয়, এরপর কাছাকাছি আসা। এই সময়টা আমি বেশ উপভোগ করেছি বলবো। কারণ, আমার কাছে মনে হয়েছে আমি যেন এখনও টিনেজে রয়েছি। ওর সঙ্গে বেশিরভাগ সময় শুধু ফোনে কথা হতো আর টেক্সটিং হতো। এভাবেই হঠাৎ করে প্রেম, তারপর বিয়ের পরিকল্পনা।’- এভাবেই নিজের হবু স্বামী সম্পর্কে বলছিলেন তাসনুভা তিশা।

গতকাল শনিবার ( ১৫ জানুয়ারি) অভিনেত্রীর বনশ্রীর বাসায় দুই পরিবারের উপস্থিতিতে তিশা ও সৈয়দ প্রিন্স আসকারের বাগদান সম্পন্ন হয়। আগামী ২ ফেব্রুয়ারি পরিবার ও কাছের মানুষদের নিয়ে ঘরোয়াভাবে তাদের বিয়ে (আকদ) হবে বলে জানান তিশা। এরপর ফেব্রুয়ারি মাসেই সবার উপস্থিতিতে বিয়ের অনুষ্ঠান করবেন।

তাসনুভা তিশা বলেন, এখনও আমি শুটিং করছি রাজবাড়িতে। শুটিংয়ের জন্য বিয়ের সময়টাও ঠিকমতো গুছিয়ে উঠতে পারছি না। গতকাল আমার যখন বাগদান হয় তখনও শুটিং ইউনিটের গাড়ি আমার বাসার নিচে দাঁড়িয়ে অপেক্ষা করছিলো আমাকে নেওয়ার জন্য। তারপর বাগদান শেষ করে শাড়িটা পাল্টেই সাথে সাথে রাজবাড়িতে শুটিংয়ে চলে আসি। এখানে আরও প্রায় ৮ দিনের মত শুটিং করতে হবে। সামনেও বেশ কিছু কাজের ডেইট দেওয়া। এর ফাঁকে বিয়ের তারিখটা ঠিক করতেই খবর হয়ে গেছে।

দুজনের ভালো লাগার শুরু কীভাবে, এমন প্রশ্নে তিশা বলেন, ‘আসকার একটি এজেন্সিতে কাজ করে অর্থাৎ শেয়ার হোল্ডার। হুট করেই পরিচয় এরপর কথাবার্তা। আমাদের দেখা খুব কম হয়েছে। ফোনে কথা হয়েছে বেশি। প্রেমের প্রস্তাবটা আমি-ই দিয়েছিলাম। একদম শুরুতেই আমার সম্পর্কে সবকিছু জানিয়েছিলাম। তিনমাস আমরা দুজন দুজনকে আপনি করেই বলতাম। এরমধ্যেই দুজন দুজনের প্রতি ভালোবাসাটা অনুভব করি। এরপর লুকিয়ে লুকিয়ে প্রেম করতাম। তখন নিজেকে টিনেজ মনে হতো। বেশ ভালোই কাটতো সময়টা। এরপর আমরা সিরিয়াস হয়ে যেতে লাগলাম। বিয়ে করবো বা করবো না; এই চিন্তাটা তখনও করিনি।

আসকার পরিবারের ছোট ছেলে, পরিবার থেকে তাকে বিয়ে দিতে চাচ্ছিলো। এরপর সে তার পরিবারে আমার সম্পর্কে জানায়। আমি মিডিয়াতে কাজ করি, আমার এক ছেলে ও এক মেয়ে আছে; এগুলো জেনেও আমার শাশুড়ি আমাকে ভীষণভাবে আপন করে নিয়েছেন। উনার কথায়, ‘‘প্রত্যেক মানুষের জীবনেই এক্সিডেন্ট থাকে। এটা তেমন কোনো ব্যাপার নয়।’’ উনারা এত বেশি পজেটিভ ও আন্তরিক দেখে আমারও ভীষণ ভালো লেগেছে, এরপর সিদ্ধান্ত নিই যে তাহলে বিয়েটা করা যায়। উনাদের কোনো অভিযোগ নেই, বরংচ অনেক খুশি। আমি অনেক খুশি, তারাও অনেক বেশি খুশি। আর সবেচেয়ে বড় বিষয় হচ্ছে আমার মেয়ে ওর সাথে খুব কমফোর্টেবল।’

তিনি আরও বলেন, ‘০২-০২-২২ তারিখটিকে স্মৃতিময় করে রাখতেই বিয়ের জন্য এই তারিখটি চূড়ান্ত করি। ওইদিন পারিবারিকভাবে দুজনের বিয়ে (আকদ) হবে। তাছাড়া ওর (আসকার) বড় ভাই দেশের দেশের বাইরে থাকেন। উনি ৩০ জানুয়ারি দেশে আসবেন। উনি দেশে থাকতে থাকতেই বিয়ের অনুষ্ঠান করে ফেলবো এবং সেটা ফেব্রুয়ারি মাসেই।’

সবার কাছে দোয়া চেয়ে তিশা বলেন, আমাদের নতুন জীবনের জন্য সবার কাছে দোয়া চাই । আশা করবো সবাই নেগেটিভিটি ভুলে সবাই আমাদের পাশে থাকবেন। ​

সূত্রঃ বাংলাদেশ জার্নাল

শেয়ার করুন

এই বিভাগের আরও সংবাদ
© All rights reserved © 2022 Muktinews24.com © এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি। সকল স্বত্ব www.muktinews24.com কর্তৃক সংরক্ষিত.
Technical Support Moinul Islam