তথ্য মন্ত্রনালয় কর্তৃক নিবন্ধনকৃত, যার রেজি নং-৩৬

শুক্রবার, ২৭ মে ২০২২, ০৯:৪৯ অপরাহ্ন

কুলের বাম্পার ফলনেও হাঁসি নেই লালপুরের কৃষকের মুখে

  • প্রকাশ শনিবার, ৫ ফেব্রুয়ারী, ২০২২, ১২.৩৫ পিএম
  • ২১ বার ভিউ হয়েছে

মো. আশিকুর রহমান টুটুল, নাটোর প্রতিনিধি: আবহাওয়া অনুকুলে থাকায় ও সঠিক পরিচর্যা করায় নাটোরের লালপুরে চলতি মৌসুমে কুলের বাম্পার ফলন হয়েছে। তবে উৎপাদিত কুলের বাজারে চাহিদা ও কাঙ্খিত দাম না থাকায় হাঁসি নেই চাষীদের মুখে।
উপজেলা কৃষি অফিস বলছে,‘চলতি মৌসুমে এই উপজেলায় ৭৫ হেক্টর জমিতে বিভিন্ন (বাউ, থাই, আপেল কুল, কাশমেরী আপেল কুল, ও বলসুন্দরী) জাতের কুল চাষ হয়েছে। এই সকল জমি থেকে ৯শ মেক্টিকটন কুল উৎপাদনের লক্ষমাত্র নির্ধারণ করা হয়েছে। গড় ৩০ টাকা কেজি দরে বাজার মূল্য ধরা হয়েছে ২ কোটি ৩০ লক্ষ টাকা।’ কুল চাষী সোহেল রানাসহ স্থানীয়রা জানায়,‘জমিতে সঠিক পরিচর্যা করায় ও আবহাওয়া অনুকুলে থাকায় এবার কুলের বাম্পার ফলন হয়েছে। প্রথমে বাজারে কুলের চাহিদা ও দাম ভালো থাকলেও বর্তমানে পাইকারী প্রতিমন বাউ কুল বিক্রয় হচ্ছে ৫শ থেকে ৮শ টাকা, কাশমেরী আপেল কুল বিক্রয় হচ্ছে প্রতিমন ১হাজার থেকে ১২শ ও বল সুন্দরী বিক্রয় হচ্ছে ১২শ থেকে ১৫শ টাকায়। এখন কুলের ভরা মৌসুম। প্রতিদিন শ্রমিক নিয়ে জমি থেকে কুল তুলে তা বিক্রয় করে শ্রমিকের মুজুরিই হয় না, জমি লিজের টাকা কোথায় থেকে দেব? আর কি ভাবে সংসার চলবে।’ কুল ব্যবসায়ীরা বলছেন,‘এবার মৌসুমের শুরুর দিকে কুলের দাম ভালো থাকলেও বর্তমানে অতিমাত্রায় শীত পড়ায় বাজারে কুলের চাহিদা কমে যাওয়ায় কুলের দাম পড়ে গেছে। কিছুদিনের মধ্যে কুলের চাহিদা বৃদ্ধি পাবে বলেও জানান তারা।’
উপজেলা কৃষি অফিসার রফিকুল ইসলাম জানায়,‘কুল চাষ লাভজনক ফসল হিসেবে লালপুরে গত কয়েক বছর ধরে চাষ হয়ে আসছে। চলতি মৌসুমে আবহাওয়া অনুকুলে থাকায় কুলের বাম্পার ফলন হয়েছে। বর্তমানে বাজারে কুলের দাম কিছুটা কম থাকায় কৃষকদের ক্ষতি হচ্ছে। তবে কাঙ্খিত দাম পেলে এখানকার কুল চাষীরা লাভবান হবেন পাশাপাশি আগামীতের এর চাষ আরো বৃদ্ধি পাবে বলে জানান এই কর্মকর্তা।’

শেয়ার করুন

এই বিভাগের আরও সংবাদ
© All rights reserved © 2022 Muktinews24.com © এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি। সকল স্বত্ব www.muktinews24.com কর্তৃক সংরক্ষিত.
Technical Support Moinul Islam