তথ্য মন্ত্রনালয় কর্তৃক নিবন্ধনকৃত, যার রেজি নং-৩৬

শুক্রবার, ২৭ মে ২০২২, ০৮:৩২ অপরাহ্ন

চিড়িয়াখানার রক্ষীকে মেরে সঙ্গী সিংহকে নিয়ে চম্পট সিংহীর!

  • প্রকাশ বুধবার, ২ ফেব্রুয়ারী, ২০২২, ৭.০৪ এএম
  • ২৩ বার ভিউ হয়েছে

মুক্তিনিউজ২৪.কম ডেস্কঃ  চিড়িয়াখানার এক রক্ষীকে মেরে সঙ্গী সিংহকে নিয়ে চম্পট দিল একটি পূর্ণবয়স্ক সিংহী। ইরানের মারকাজি প্রদেশের আরাক শহরের একটি চিড়িয়াখানায় ঘটেছে এই চাঞ্চল্যকর ঘটনা। দুই সিংহ চিড়িয়াখানা থেকে পালাতেই লাল সতর্কতা জারি হয় আরাক ও নিকটবর্তী এলাকায়। পাশাপাশি সিংহ ও সিংহীর খোঁজে শহরে বেরিয়ে পড়ে বন দপ্তরের কর্মীরা।

 

জানা গেছে, গত বেশ কয়েক বছর ধরেই আরাকের চিড়িয়াখানায় ছিল ওই সিংহ ও সিংহী। তবে এদের মধ্যে সিংহটি স্বাভাবিক আচরণ করলেও সিংহীর তর্জন-গর্জন লেগেই থাকত। ভাল খাওয়াদাওয়া ও পর্যাপ্ত ঘুমের ব্যবস্থা করলেও তাকে কোনও মতে ‘পোষ’ মানাতে পারছিল না আরাকের চিড়িয়াখানার কর্মীরা। এখন বোঝা যাচ্ছে যে সে তক্কেতক্কে ছিল। এদিন সুযোগ পেয়েই নিজের খাঁচার রক্ষীকে আক্রমণ করে সে। ঘটনাস্থলেই মৃত্যু হয় ওই ব্যক্তির। এরপরেই সঙ্গী সিংহকে নিয়ে খাঁচার পাঁচিল টপকে পালায়।

 

আরাকের রাজ্যপাল আমির হাদি বলেন, “ঘটনা জানতে পারার সঙ্গে সঙ্গে চিড়িয়াখানা খালি করে এলাকা ঘিরে ফেলে নিরাপত্তারক্ষীরা।” এইসঙ্গে আরাক শহরে জারি করা হয় লাল সতর্কতা। পাশাপাশি ইরানের ওই শহরের বন দপ্তরের কর্মীরা দুই সিংহের খোঁজে আরাকে তল্লাশি শুরু করে। সিংহ-অভিযানে নামে স্থানীয় পুলিশও। লাগাতার তল্লাশি শেষে আরাকের একটি প্রান্তিক এলাকায় খোঁজ মেলে যুগলের। দ্রুত খাঁচাবন্দি করা হয় দুই সিংহকে।

 

আরাকের রাজ্যপাল বলেন, “ওদের জীবীত ও সুস্থ অবস্থায় উদ্ধারের চেষ্টা হয়েছিল, সেই কাজ সম্ভব করেছে পুলিশ ও বন দপ্তরের কর্মীরা। ওদের ধন্যবাদ জানাই।”

 

প্রসঙ্গত, গত বছরের অক্টোবর মাসে ঝাড়গ্রামের মিনি জু’ থেকে পালিয়েছিল একটি চিতাবাঘ। যদিও ১৭ ঘণ্টা পর চিড়িয়াখানা চত্বরেই খোঁজ মেলে বাঘটির। সেবার চিড়িয়াখানা চিতাবাঘ পালানোর খবরে তীব্র আতঙ্ক ছড়িয়েছিল ঝাড়গ্রামে। শেষে কলকাতা থেকে একটি টিম গিয়ে পাকড়াও করে চিতাবাঘটিকে।

শেয়ার করুন

এই বিভাগের আরও সংবাদ
© All rights reserved © 2022 Muktinews24.com © এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি। সকল স্বত্ব www.muktinews24.com কর্তৃক সংরক্ষিত.
Technical Support Moinul Islam