তথ্য মন্ত্রনালয় কর্তৃক নিবন্ধনকৃত, যার রেজি নং-৩৬

শুক্রবার, ২৭ মে ২০২২, ১১:১৯ পূর্বাহ্ন

রাইস ট্রান্সপ্লান্টারের মাধ্যমে প্রথমবারের মত খানসামা উপজেলায় ধানের চারা রোপণ

  • প্রকাশ বৃহস্পতিবার, ১৭ ফেব্রুয়ারী, ২০২২, ১০.১৫ এএম
  • ৩৭ বার ভিউ হয়েছে

মুক্তিনিউজ২৪.কম ডেস্কঃ এস.এম.রকি, খানসামা (দিনাজপুর) প্রতিনিধিঃ রাইস ট্রান্সপ্লান্টার যন্ত্রের মাধ্যমে প্রথমবারের মত দিনাজপুরের খানসামা উপজেলায় কৃষি যন্ত্রের ব্যবহার বৃদ্ধি,খামার যান্ত্রিকীকরণ ও খরচ কমিয়ে কৃষককে উৎসাহিত করার লক্ষ্যে ৬০জন কৃষকের ৫০ একর জমিতে ধানের চারা রোপণ কার্যক্রম শুরু হয়েছে। এই আধুনিক পদ্ধতিতে চারা রোপণে সহযোগিতা করছে কৃষি বিভাগ।

বৃহস্পতিবার (১৭ ফেব্রুয়ারী) উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের আয়োজনে গোবিন্দপুর গ্রামের আঃ সালামের জমিতে ২০২১-২২ অর্থ বছরে বোরো মৌসুমে ব্রিধান-৭৯ জাতের রোপণ কার্যক্রমের আওতায় রাইস ট্রান্সপ্লান্টার যন্ত্রের মাধ্যমে চারা রোপণ কার্যক্রম উদ্বোধন করেন উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা বাসুদেব রায়।

এসময় উপস্থিত ছিলেন অতিরিক্ত কৃষি কর্মকর্তা ইয়াসমিন আক্তার, উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ অফিসার শাহানা আফরোজ ও উপ-সহকারী কৃষি কর্মকর্তাগণসহ অনেকে।

যন্ত্র দিয়ে এক ঘন্টায় ০.৩৫ হেক্টর জমির ধান রোপণ করা যায়। জ্বালানি খরচ ঘণ্টায় সাতশ’ গ্রাম। প্রতি হেক্টর জমিতে ২০ জন শ্রমিকের সাশ্রয় হয়। এ যন্ত্র দিয়ে ধানের চারা রোপণ করলে কৃষকের সময় ও অর্থের সাশ্রয় হবে। চারা রোপণে যন্ত্রটি ব্যবহার করলে রোপণ খরচ ৫০-৭৫ ভাগ কমানো সম্ভব হবে। এটা দিয়ে চারা রোপণ করলে লাইন সোজা হয়। ফলে পরবর্তীতে আগাছা নিংড়ানো, সার ও কীটনাশক ছিটানো ও ধান কাটা সহজ হয়।

উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা বাসুদেব রায় বলেন, যন্ত্রের ব্যবহার বৃদ্ধি, আধুনিক ধান রোপণের রাইস ট্রান্সপ্লান্টার যন্ত্রের সাহায্যে সম দূরত্ব, সমগভীরতায় এবং অল্প শ্রমে ধানের চারা রোপন করা সম্ভব। কৃষকদের সচেতনতা বৃদ্ধিই এই কার্যক্রমের লক্ষ্য। এতে কৃষকদের খরচ কমবে, ফলন বাড়বে এবং সময় বাঁচবে।

শেয়ার করুন

এই বিভাগের আরও সংবাদ
© All rights reserved © 2022 Muktinews24.com © এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি। সকল স্বত্ব www.muktinews24.com কর্তৃক সংরক্ষিত.
Technical Support Moinul Islam