তথ্য মন্ত্রনালয় কর্তৃক নিবন্ধনকৃত, যার রেজি নং-৩৬

সোমবার, ০৪ জুলাই ২০২২, ১২:১৩ অপরাহ্ন
সদ্য সংবাদ :
বিশ্বের প্রথম ক্রিকেটার হিসেবে সাকিবের অবিশ্বাস্য রেকর্ড আদমদীঘিতে ব্যবসায়ীর আত্মহত্যা তৃতীয় দিনে ৯২ হাজারের বেশি টিকিট বিক্রি শেখ হাসিনার বারতা নারী পুরুষ সমতা  উলিপুরে চেক বিতরণ অনুষ্ঠান  মৌলভীবাজার জেলা পুলিশের মাসিক কল্যাণ সভা ও ক্রাইম কনফারেন্স অনুষ্ঠিত রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রীকে জিএম কাদেরের ঈদ শুভেচ্ছা ফুলবাড়ীতে নেসকো কোম্পানীর বিদ্যুৎ নিয়ে ভেলকিবাজি এসএসসি ও সমমানের পরীক্ষা আগস্টে নোয়াখালীতে উদ্বোধনের ২৪ ঘন্টা না যেতেই বিআরটিসি বাসঃ পুনরায় চালুর দাবীতে মানববন্ধন ও বিক্ষোভ মিছিল বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান অ্যাভিয়েশন অ্যান্ড অ্যারোস্পেস বিশ্ববিদ্যালয়ের লালমনিরহাট ক্যাম্পাসের একাডেমিক সেশন উদ্বোধন করেন বিমান বাহিনী প্রধান

প্রেমের টানে ইন্দোনেশিয়ান তরুণী লক্ষ্মীপুরে

  • প্রকাশ মঙ্গলবার, ৮ মার্চ, ২০২২, ২.৪৩ পিএম
  • ৪৩ বার ভিউ হয়েছে

মুক্তিনিউজ২৪.কম ডেস্কঃ প্রেমের টানে বাংলাদেশে ছুটে এসেছেন ফানিয়া আইঅপ্রেনিয়া নামে এক ইন্দোনেশিয়ান তরুণী। ফানিয়া ইন্দোনেশিয়ার দিপক এলাকার পাউদি হেলমি ও ফিসুনয়াদি ইসনা ওয়াপি দম্পতির মেয়ে। তিনি সেখানে কল সেন্টারে চাকরি করেন।

সোমবার (৭ মার্চ) বিকেলে ইন্দোনেশিয়া থেকে একটি ফ্লাইটে ঢাকার হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে এসে পৌঁছান ফানিয়া। সেখান থেকে লক্ষ্মীপুরের রায়পুর উপজেলার রাখালিয়া গ্রামে রাসেল আহমদের কাছে আসেন তিনি।

রাসেল আহমেদ রায়পুর উপজেলার রাখালিয়া গ্রামের মো. মনির হোসেনের ছেলে। পেশায় পোশাক ব্যবসায়ী তিনি । প্রায় চার বছর আগে ফেসবুকের মাধ্যমে ফানিয়ার সঙ্গে রাসেলের পরিচয়, বন্ধুত্ব ও ঘনিষ্ঠতা। এক পর্যায়ে তা প্রেমের সম্পর্কে গড়ায়।

রাসেল বলেন, চার বছর প্রেম করার পর বিয়ের জন্য সুদূর ইন্দোনেশিয়া থেকে বাংলাদেশে পাড়ি জমান ফানিয়া। ভবিষ্যতে স্ত্রীকে নিয়ে বাংলাদেশে স্থায়ীভাবে বসবাসের ইচ্ছা আছে তার, তবে আপাতত নয়। দুই মাসের ছুটি নিয়ে এসেছেন ফানিয়া। ছুটি শেষে চলে যেতে হবে ইন্দোনেশিয়ায়। তবে এক সময় ফানিয়াকে নিয়ে স্থায়ীভাবে বাংলাদেশে বসবাস করতে চান তিনি। ফানিয়াও বাংলাদেশে থাকার ব্যাপারে আগ্রহী।

মঙ্গলবার (৮ মার্চ) দুপুরে রায়পুরের রাখালিয়া গ্রামে রাসেল আহমেদের বাড়ি গিয়ে দেখা যায়, রাসেলের পরিবারের সদস্যদের সঙ্গে গল্প করছেন ফানিয়া। তিনি জানান, রাসেলের প্রতি গভীর ভালোবাসার টানে বাংলাদেশে এসেছেন। তিনি তার সঙ্গে বিয়ের বন্ধনে আবদ্ধ হতে চান। বিষয়টি তিনি তার মা-বাবকে জানিয়ে এসেছেন। তিনি এদেশের মানুষের আতিথেয়তা ও ভালোবাসায় মুগ্ধ। ফানিয়া বাংলা বুঝতে পারেন, তবে বলতে পারেন না। আস্তে আস্তে বাংলা শেখার চেষ্টা করছেন।

রাসেল আহমেদের মা বিলকিস বেগম জানান, এখানে আসার পর থেকে পরিবারের সবার সঙ্গে মিশে চলছে ফানিয়া। সবাইকে আপন করে নিয়েছে। ঘটনাটি এলাকায় চাঞ্চল্যের সৃষ্টি করেছে। আশপাশের মানুষ ভিড় করছে ফানিয়াকে দেখতে।

শেয়ার করুন

এই বিভাগের আরও সংবাদ
© All rights reserved © 2022 Muktinews24.com © এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি। সকল স্বত্ব www.muktinews24.com কর্তৃক সংরক্ষিত.
Technical Support Moinul Islam