তথ্য মন্ত্রনালয় কর্তৃক নিবন্ধনকৃত, যার রেজি নং-৩৬

রবিবার, ২৯ মে ২০২২, ০৪:৩১ পূর্বাহ্ন
সংবাদ শিরোনামঃ
বিশ্ববিদ্যালয়ে সময়োপযোগী কারিকুলাম প্রণয়নের নির্দেশ রাষ্ট্রপতির উলিপুরে নিরাপদ মাতৃত্ব দিবস উপলক্ষে   র‌্যালিও  আলোচনা সভা জাতিসংঘ শান্তিরক্ষা কার্যক্রমের প্রতি প্রধানমন্ত্রীর সমর্থন পুনর্ব্যক্ত শ্রীমঙ্গলে অনিবন্ধিত দুটি ডায়াগনস্টিক সেন্টার সিলগালা সান্তাহারে রেলওয়ে পুলিশের অভিযানে সক্রিয় চোর দলের এক সদস্য গ্রেফতার সভাপতি আব্দুল মহিত তালুকদার, সাধারন সম্পাদক আবু হাসান নির্বাচিত রোববারের মধ্যে অবৈধ ক্লিনিক-ডায়াগনস্টিক বন্ধ না হলে ব্যবস্থা কুলাউড়া থানা পুলিশের অভিযানে সাজাপ্রাপ্ত আসামি গ্রেফতার টেক্সাস স্কুল হামলা: দেরির জন্য ভুল স্বীকার পুলিশের ফুলবাড়ীতে সরকারি ভূমি দখলকারী আখ্যা দিয়ে প্রতিপক্ষের মানবন্ধনের প্রতিবাদে সংবাদ সম্মেলন॥

বিচারহীনতার সংস্কৃতি থেকে বাংলাদেশ মুক্তি পেয়েছে : প্রধানমন্ত্রী

  • প্রকাশ বৃহস্পতিবার, ৩১ মার্চ, ২০২২, ১১.৪১ এএম
  • ৩১ বার ভিউ হয়েছে

মুক্তিনিউজ২৪.কম ডেস্কঃ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, বিচারহীনতার একটি সংস্কৃতি দেশে চালু করা হয়েছিল। সে অবস্থার একমাত্র পরিবর্তন করতে পেরেছি যখন জনগণের ভোটে নির্বাচিত হয়ে সরকারে এসেছি তখন। সেখানে অনেক বাধা অনেক কিছুই আমাদের মোকাবিলা করতে হয়েছে। কিন্তু আমি ধন্যবাদ জানাই বিচারকের সাহসী পদক্ষেপের জন্য। আজ বৃহস্পতিবার (৩১ মার্চ) বাংলাদেশ সুপ্রিম কোর্টের নবনির্মিত ১২তলা ভবন ‘বিজয়-৭১’-এর উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে ভার্চুয়ালি যোগ দিয়ে তিনি এ কথা বলেন। তিনি বলেন, আমরা যারা আপনজন হারিয়েছিলাম, আমাদের কোনো অধিকার ছিল না বিচার চাওয়ার। এমনকি আমি বাংলাদেশে ফিরে এসে মামলা করার চেষ্টা করেছি। কিন্তু মামলা করতে দেওয়া হয়নি। কারণ ইন্ডেমনিটি (দায়মুক্তি) দেওয়া হয়েছে খুনিদের। সরকারপ্রধান বলেন, নিম্নআদালত থেকে উচ্চ আদালত পর্যন্ত সবার কাছে কৃতজ্ঞতা জানাচ্ছি। আমরা বিচারহীনতা থেকে বাংলাদেশকে মুক্ত করতে পেয়েছি। অনুষ্ঠানে দেশের অগ্রযাত্রায় বিচার বিভাগের ভূমিকা তুলে ধরে সরকারপ্রধান বলেন, আমি কৃতজ্ঞতা জানাই আমাদের হাইকোর্ট-সুপ্রিম কোর্টের প্রতি, উচ্চ আদালতই রায় দিয়ে এ দেশের মানুষের গণতান্ত্রিক অধিকার সুরক্ষিত করে দিয়েছেন। সংবিধান লঙ্ঘন করে ক্ষমতা দখল যে অবৈধ সে রায় তারা দিয়েছেন, এ জন্য আমি ধন্যবাদ জানাই। তিনি বলেন, পাকিস্তান আমলে আমরা দেখেছি এ ধরনের অনিয়ম। যেমন- আইয়ুব খান একাধারে সেনাপ্রধান আবার নিজেকে রাষ্ট্রপতি ঘোষণা দিয়ে ক্ষমতা দখল করেছিল। তারই পদাঙ্ক অনুসরণ করে জেনারেল জিয়াউর রহমান যাকে খন্দকার মোস্তাক ১৫ আগস্টের পর সেনাপ্রধান নিয়োগ করে এবং তার সবচেয়ে ঘনিষ্ঠ ছিল তারা। তারা ষড়যন্ত্র করেই জাতির পিতাকে হত্যা করেছিল। শেখ হাসিনা বলেন, জিয়া সেনাপ্রধান আবার একাধারে রাষ্ট্রপতি। এই অনিয়ম করতে গিয়ে সে সেনা আইন যেমন ভঙ্গ করে আবার সংবিধানকেও পদদলিত করে এবং মার্শাল ল জারি করে। তারই পদাঙ্ক অনুসরণ করে আবার জেনারেল এরশাদ ক্ষমতা দখল করেন। এই ক্ষমতা দখলের পালা যখন চলছে তখন বাংলাদেশে একের পর এক ক্যু হতে থাকে। প্রায় ১৯-২০টি ক্যু হয়েছে এই দেশে। এর খেসারত দিয়েছে আমাদের সেনাবাহিনী, বিমানবাহিনীর অফিসার ও সৈনিকরা, রাজনৈতিক নেতাকর্মীরা আর আমাদের দেশের মানুষ। প্রধানমন্ত্রী বলেন, কাজেই বাংলাদেশে ন্যায়বিচারের পথ বন্ধ করে দিয়ে এই সমস্ত খুনি যারা জাতির পিতাকে নির্মমভাবে হত্যা করেছে, শিশু ও নারীদের হত্যা করেছে, তাদের বিচার না করে ইমডেমনিটি অর্ডিনেন্স জারি করা হয়েছিল, যার মাধ্যমে খুনিদের পুরস্কৃত করে বিভিন্ন দূতাবাসে চাকরি দেয়া হয়েছিল, নির্বাচন করার অধিকার দেয়া হয়েছিল। যুদ্ধাপরাধী যাদের বিচার জাতির পিতা শুরু করেছিলেন সে যুদ্ধাপরাধীদের বিচার বন্ধ করে দিয়ে যারা কারাগারে বা সাজাপ্রাপ্ত তাদেরকে মুক্তি দিয়ে এদেশে রাজনীতি করার সুযোগ দিয়েছিল জিয়াউর রহমান। তার স্ত্রী খালেদা জিয়াও সেই একই কাজ করেছিল। সেই যুদ্ধাপরাধীরাই ছিল ক্ষমতায়। তিনি বলেন, যে আদর্শ যে চেতনায় বাংলাদেশ স্বাধীন হয়েছিল সেই আদর্শ-চেতনা ভূলুন্ঠিত হয়ে গিয়েছিল। আমি মনে করি এই একটি রায়ের মধ্য দিয়ে বাংলাদেশের মানুষের গণতান্ত্রিক অধিকার সুরক্ষিত হয়েছে। সেই সাথে আমি এবং আমরা যারা ১৫ আগস্ট আপনজন হারিয়েছিলাম আমাদের কোনো অধিকার ছিল না বিচার চাওয়ার। এমনকি আমি বাংলাদেশে ফিরে এসে মামলা করার চেষ্টা করেছি, কিন্তু করতে দেয়া হয়নি। জাতির পিতার পদাঙ্ক অনুসরণ করে দেশের উন্নয়নে কাজ করে যাওয়ার কথা জানান তার জ্যেষ্ঠ কন্যা শেখ হাসিনা। তিনি বলেন, ‘জাতির পিতা সারাজীবন সংগ্রাম করেছেন এ দেশের মানুষের জন্য। কাজেই আমাদেরও সেটাই লক্ষ্য গণতন্ত্রকে সুরক্ষিত করে আইনের শাসন প্রতিষ্ঠা করে দেশের মানুষ যেন ন্যায় বিচার পায়, মানুষের আর্থ- সামাজিক উন্নতি যেন হয় সেটাই আমাদের লক্ষ্য। সেই লক্ষ্য নিয়েই আমরা কাজ করে যাচ্ছি। তিনি বলেন, ’৯৬ সালে যখন আমরা সরকারে এসেছি সাথে সাথে বিভিন্ন পদক্ষেপ নিয়েছি যে আমাদের বিচার বিভাগ আরও শক্তিশালী হবে এবং বিচার বিভাগ আমাদের ’৭২ সালের যে সংবিধান, যে সংবিধানে জাতির পিতা বিচার বিভাগের স্বাধীনতা দিয়ে গেছেন তা যেন কার্যকর হয়। আমাদের সরকারই সংবিধানের ১১৬ অনুচ্ছেদ কার্যকর করার পদক্ষেপ নিই। সরকারপ্রধান বলেন, বিচার বিভাগের জন্য আলাদা বাজেট বরাদ্দ করা, আর্থিক ব্যবস্থাপনার দায়িত্ব সুপ্রিম কোর্টের হাতে ন্যস্ত করা, নির্বাহী বিভাগ থেকে বিচার বিভাগকে পৃথক করার লক্ষ্যে প্রয়োজনীয় বিধিমালা প্রণোয়নের উদ্যোগ আমরা নিয়েছি। উচ্চ আদালতে ড্রাফটের জন্য আলাদা কোনো কাঠামো বা কিছুই ছিল না, সেটার জন্য আমরা উদ্যোগ নিই। ড্রাফটিংয়ের যে কম্পিউটাররা এটা আমরা নিজেরা ক্রয় করে পাঠিয়ে দিয়েছিলাম। একটা স্থায়ী আইন কমিশন গঠন করি। বিচার বিভাগ প্রশিক্ষণ ইন্সটিটিউট আমরা প্রতিষ্ঠা করি। সেই সাথে বিচারকদের বিদেশে ট্রেনিংয়ের ব্যবস্থাও আমরা নিয়েছি। প্রধানমন্ত্রী বলেন, আল্লাহর রহমতে এখন প্রায় ৯০ ভাগ উন্নয়ন পরিকল্পনা আমরা নিজেদের অর্থায়নে করতে পারি। সে সক্ষমতা আমরা অর্জন করেছি। এর সবচেয়ে বড় দৃষ্টান্ত হচ্ছে নিজস্ব অর্থায়নে আমরা পদ্মা সেতুর মতো একটি বড় প্রকল্প বাস্তবায়ন করেছি। এটার মধ্য দিয়েই আমি মনে করি, দেশের ভাবমূর্তি বিদেশে অনেক উজ্জ্বল হয়েছে। করোনা মহামারির সময় ভার্চুয়াল পদ্ধতিতে বিচার বিভাগকে সচল রাখায় সংশ্লিষ্টদের ধন্যবাদও জানান সরকার প্রধান। তিনি বলেন, আমরা ডিজিটাল বাংলাদেশ করার ঘোষণা ২০০৮ সালের নির্বাচনী ইশতেহারে দিয়েছিলাম। করোনাভাইরাসে যখন মানুষ দুর্দশাগ্রস্ত, যখন কোর্ট পরিচালনা করা কঠিন হয়ে যাচ্ছিলো। সে সময় আমি চেয়েছিলাম এবং পরামর্শ দিয়েছিলাম একটি ডিজিটাল ব্যবস্থায় এবং ভার্চুয়াল কোর্ট চালু করা। প্রধানমন্ত্রী বলেন, সেই সাথে কেরানীগঞ্জে যে কারাগার সেখানে একটি কোর্ট রুম এবং অন্যান্য সুযোগ সুবিধা আমরা চালু করেছিলাম যে ভাচুয়াল কোর্ট চালু করলে সেখান থেকে ভার্চুয়ালি যেন যুক্ত হতে পারে, তাদের আইনজীবী যেন থাকতে পারেন। এরপর মাননীয় প্রধান বিচারপতিকে অনুরোধ করেছিলাম যে ভার্চুয়াল কোর্ট আপনি চালু করেন এতে অন্তত কিছু বিচার চলবে নাহলে সব কিছু স্থবির হয়ে যাচ্ছে। বহু মানুষ গ্রেপ্তার হচ্ছে, বন্দি হচ্ছে কিন্তু বিচার পাচ্ছে না। আমরা আদালত কর্তৃক তথ্য প্রযুক্তি ব্যবহার আইন প্রনোয়ন করে ভার্চুয়াল কোর্ট আমরা চালু করতে পেরেছি তাতে অনেক বিচারকাজ সম্পন্ন হয়েছে। তিনি বলেন, আমাদের দেশে রায় সব সময় ইংরেজিতেই দেয়া হয়। যদিও এখন আমাদের সাক্ষরতার হার আমরা সরকার গঠনের পর ৭৫ ভাগে উন্নিত করেছি, এটা ঠিক। কিন্তু রায় ইংরেজিতে সবার জন্য বোঝা সম্ভব নয়। কাজেই এটা বহুদিনের দাবি ছিল যে রায়গুলো যেন বাংলায় দেয়া হয়। আমি খুবই আনন্দিত যে এটার পদক্ষেপ নেয়া হয়েছে ওয়েবসাইটে রায়গুলো বাংলায় প্রচার করা হয়। এতে মানুষ অন্তত যারা বিচার পায় তারা সঠিকভাবে জানতে পারে রায়ে কি বলা হলো। সাধারণ মানুষের এটা জানার সুযোগ সৃষ্টি হয়েছে। সম্পুর্ণ ডিজিটাইজড করতে উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। তথ্য প্রযুক্তি উপদেষ্টা বিষয়টি নিজে পরীক্ষা নিরীক্ষা করে বাস্তবায়ন যাতে করা যায় সে ব্যবস্থা নিয়েছে। সজীব ওয়াজেদ জয় পরীক্ষা নিরীক্ষা করার সময় অনেক টাকা সাশ্রয়ও করে দিয়েছে। খুব বেশি টাকার একটি প্রজেক্ট নেয়া হয়েছিল সেখান থেকে অনেক টাকা কাটছাট করে বাস্তবায়ন করার ব্যবস্থা করে দিয়েছে। অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন প্রধান বিচারপতি হাসান ফয়েজ সিদ্দিকী। সভাপতিত্ব করেন আইনমন্ত্রী আনিসুল হক। শুভেচ্ছা বক্তব্য দেবেন অ্যাটর্নি জেনারেল এ এম আমিন উদ্দিন। এ ছাড়া স্বাগত বক্তৃতা করেন আইন সচিব মো. গোলাম সারওয়ার। এ সময় সুপ্রিম কোর্ট ও হাইকোর্ট বিভাগের বিচারপতি ও আইনজীবীরা উপস্থিত ছিলেন। জানা গেছে, সুপ্রিম কোর্টের এনেক্স এক্সটেনশন (বর্ধিত) ভবন নির্মাণে বরাদ্দ দেওয়া হয় ১৫৮ কোটি চার লাখ ২২ হাজার টাকা। যার পুরোটাই বহন করছে সরকার। এনেক্স ভবনের পশ্চিম পাশে ১৮ হাজার ১৩৪ বর্গমিটার জায়গায় নির্মিত হলো এ ভবন। এতে রয়েছে আধুনিক সুযোগ-সুবিধা, বিচারপতিদের জন্য ৫৬টি চেম্বার, ৩২টি এজলাসকক্ষ (কোর্ট রুম), আলাদা দুটি লিফট, আধুনিক জেনারেটর ও দোতলা বিদ্যুতের সাব-স্টেশন। এছাড়া এ ভবনে ৩২টি ডিভিশন বেঞ্চ ও বিচারপতিদের চেম্বার ছাড়াও ২০টি অফিসকক্ষ এবং সুপ্রিম কোর্ট প্রশাসনের দাপ্তরিক কক্ষ রয়েছে।

শেয়ার করুন

এই বিভাগের আরও সংবাদ
© All rights reserved © 2022 Muktinews24.com © এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি। সকল স্বত্ব www.muktinews24.com কর্তৃক সংরক্ষিত.
Technical Support Moinul Islam