তথ্য মন্ত্রনালয় কর্তৃক নিবন্ধনকৃত, যার রেজি নং-৩৬

শুক্রবার, ০৭ অক্টোবর ২০২২, ০৬:১৫ পূর্বাহ্ন

রিয়ালকে ৪ গোলের লজ্জায় ডুবিয়ে এল ক্ল্যাসিকোয় দুর্দান্ত বার্সা

  • প্রকাশ সোমবার, ২১ মার্চ, ২০২২, ৫.১২ এএম
  • ৪৬ বার ভিউ হয়েছে

মুক্তিনিউজ২৪.কম ডেস্কঃ  শেষ পাঁচ এল ক্ল্যাসিকোর একটিতেও জয় নেই বার্সার। ঘরের মাঠ বা প্রতিপক্ষ রিয়ালের মাঠ, ধরাশয়ী হয়েছে সবখানেই। আজকের ম্যাচটা ছিলো রিয়ালের মাঠে। ম্যাচের আগে যে কোন ফুটবল ভক্তের বাজিটাও ছিলো তাই রিয়ালের পক্ষেই। তবে মাঝের দুর্বিষহ সময় পার করে জাভির কোচিংয়ে ধীরে ধীরে পুরনো রূপে ফিরতে থাকা বার্সা ইঙ্গিত ঠিকই দিয়ে রেখেছিলো তারাও ছেড়ে কথা বলবে না।শুধু ছেড়েই কথা বলেনি বার্সা, রিয়ালকে নিজেদের মাঠে রীতিমত লজ্জায় ডুবিয়ে এল ক্ল্যাসিকোর জয়খরা কাটিয়ে ৪-০ গোলের জয় তুলে নিয়েছে কাতালান ক্লাবটি। নিজের প্রথম এল ক্ল্যাসিকোতেই জোড়া গোল করেছেন পিয়েরে এমরিক অবেমেয়াং। দলের বাকি দুই গোল করেছেন রোনাল্ড আরাউজো আর ফেরান টোরেস।

ম্যাচের শুরু থেকেই যেন দুর্দান্ত দাপুটে বার্সা। রক্ষণ সামলে মাঝমাঠের দখল নিয়ে আক্রমণে ওঠা, জাভির বার্সা খেললো পুরো প্যাকেজ ফুটবল। বার্সার দাপুটে ফুটবলের সামনে যেনো খেই হারিয়েই বসলো কার্লো আনচেলত্তির রিয়াল মাদ্রিদ। শুরু থেকেই মুষড়ে পড়া রিয়ালকে নিয়ে ছেলেখেলা করেই এল ক্ল্যাসিকোতে চিরপ্রতিদ্বন্দীদের উড়িয়ে তিন পয়েন্ট নিয়ে মাঠ ছাড়লো বার্সা।

৪-০ গোলের স্কোরলাইনও পুরো ম্যাচের গল্প বলবে না। বার্সা আজ রিয়ালের রক্ষণে একের পর এক যেভাবে আক্রমণের পসরা সাজিয়ে বসেছিলো তাতে স্কোরবোর্ডে আরও দু চারটা গোল উঠতেই পারতো। ম্যাচের প্রায় ৬০ শতাংশ বলের দখল ছিলো পিকে-বুস্কেটসদের পায়েই। বার্সা আজ গোলমুখে সর্বমোট শট নিয়েছে ১৮ টি, যার ১০ টিই ছিলো পোস্টের ভেতর। অন্যদিকে রিয়াল ১৪ টি শট নিলেও পোস্টে রাখতে পেরেছে মাত্র ৪ টি শট।

ম্যাচের প্রথম সুযোগটি পেয়েছিলো অবশ্য রিয়াল মাদ্রিদ। মাঠের ডান দিক দিয়ে ডি-বক্সে ঢুকে রদ্রিগোর নেয়া শট হয় লক্ষ্যে থাকেনি। এর ঠিক দুই মিনিট পরি গতির ঝলক দেখিয়ে আবারও বার্সার ডি-বক্সে ঢুকে রোনাল্ড আরাউজোকে কাটিয়ে ভিনিসিয়াস জুনিয়র কাটব্যাক করেন ফেদে ভালভেরদের কাছে। ভালভেরদের নিচু ছুটে এসে আটকে দেন মার্ক আন্দ্রে টের স্টেগান।

শুরুর এই গল্পটুকু রিয়ালের। এরপরই বার্সার রাজত্বে শুরু। ম্যাচের ১২ মিনিটে ফেরানের পাস থেকে অবেমেয়াংয়ের শট ঠেকিয়ে রিয়লাকে বাচান গোল্রক্ষক থিবো কোর্তোয়া। ২৪ মিনিটে অবশ্য ফেরান নিজেই হারিয়ে ফেলেন এক সুবর্ণ সুযোগ। পেদ্রির ভাসানো বল ডি-বক্সে পেয়ে শট নিলে এবার তা আটকে দেন রিয়ালের ব্রাজিলিয়ান ডিফেন্ডার এডের মিলিতাও।

মিনিট পাঁচেক পর আর শেষ রক্ষা হলো না রিয়ালের। হারিয়ে ফেলা নিজেকে খুঁজে পাওয়া উসমানে ডেম্বেলের ডান দিক থেকে বাড়ানো ক্রস কোনাকুনি হেডে জালে পাঠাতে একটুও ভুল করেননি নিজের প্রথম ক্ল্যাসিকো খলেতে নামা অবেমেয়াং।

৩৫তম মিনিটে অবশ্য এই গোল শোধ দিয়ে ম্যাচে সমতা ফেরানোর দারুণ সুযোগ পেয়েছিলেন ভিনিসিয়াস। গতির ঝড়ে পাল্টা আক্রমণে উঠেও টের স্টেগানের সামনে ওয়ান-অন-ওয়ানে গড়বড় পাকিয়ে নিজেই পড়ে গেলেন নিজের ভারসাম্য হারিয়ে।

ভিনিসিয়াসের মিস করার ঠিক তিন মিনিট পর বার্নাব্যুকে স্তব্ধ করে দিয়ে ২-০ গোলে এগিয়ে যায় বার্সা। ডেম্বেলের দ্বিতীয় অ্যাসিস্টে ভূমিকায় আরাউজোর হেড ঠেকানোর ক্ষমতা ছিলো না কোর্তোয়ার। দুই গোলের লিড নিয়েই বিরতিতে যায় বার্সা।

দ্বিতীয়ার্ধ্বে মাঠে নেমে প্রথম মিনিটেই ব্যবধান বাড়িয়ে নিতে পারতো জাভির শিষ্যরা। তবে এবার কোর্তোয়াকে একা পেয়েও ফেরান বল মারেন পোস্টের বাইরে। তবে এক মিনিট যেতে না যেতেই নিজের ব্যর্থতা মুছে বার্সাকে ৩-০ গোলের লিড এনে দেন এই স্প্যানিশ ফরোয়ার্ড। অবেমেয়াংয়ের পাস আবার আর জালে জড়াতে ভুল করেননি ফেরান।

তিন গোল খাওয়ার পর থেকে যেন একেবারে দিশেহারা হয়ে পড়ে ক্যাসেমিরো-মদ্রিচরা। অন্যদিকে নিজেদের ভেতর যেন আরও গোলক্ষুধা জাগিয়ে তোলে অবেমেয়াং-ডেম্বেলেরা। ম্যাচের ৫১ মিনিটে নিচ থেকে ফেরানের উদ্দেশ্যে উঁচু বল বাড়ান জেরার্ড পিকে। বল নিয়ন্ত্রণে নিয়ে ফেরান পাস দেন অবেমেয়াংকে। দ্বিতীয়বার বল জালে জড়াতে কোনো ভুল করেনি গ্যাবনের এই স্ট্রাইকার। রিয়ালের খেলোয়াড়রা অফসাইডের আবেদন করলেও ভিএআরের সাহয্য নিয়ে বার্সার চার নাম্বার গোলের পক্ষেই রায় দিয়েছেন রেফারি।

প্রথম এল ক্ল্যাসিকোতেই হ্যাট্ট্রিক করার সুযোগ পেয়েও অল্পের জন্য সেই সুযোগ হাতছাড়া হয়েছে অবেমেয়াংয়ের। ৫৭ মিনিটে বাঁ দিক থেকে বাড়ানো জর্দি আলবার পাস ছয় গজ বক্সের ভেতর ফাঁকায় পেয়েও ঠিকমতো পা ছোঁয়াতে না পারায় শট লক্ষ্যে রাখতে পারেননি তিনি।ম্যাচের বাকি সময়টা রিয়ালের খেলোয়াড়রা যেমন ছিলেন ছন্নছাড়া, বার্সা তেমনি চেষ্টা করে গেছে ব্যবধান আরো বাড়ানোর। তবে আর কনো দলই জালে বল জড়াতে পারেনি। ম্যাচ শেষে বার্নাব্যু থেকে ৪-০ গোলের লজ্জা নিয়েই মাথ ছাড়তে হয়েছে রিয়ালের সমর্থকদের।

অন্যদিকে লা লিগায় গত চার ক্ল্যাসিকোতে টানা হারের মুখ দেখা বার্সেলোনা চিরপ্রতিদ্বন্দীদের তাদেরই মাঠে হ৪ গোলের লজ্জায় ডুবিয়ে যেনো জানান দিয়ে গেলো, বার্সা এখনও ফুরিয়ে যায়নি।ক্ল্যাসিকো হারলেও অবশ্য ২৯ ম্যাচে ৬৬ পয়েন্ট নিয়ে লা লিগার পয়েন্ট টেবিলের শীর্ষেই থাকছে রিয়াল। আর ২৮ ম্যাচে ৫৪ পয়েন্ট নিয়ে টেবিলের তিন নাম্বারে জাভির শিষ্যরা। ২৯ ম্যাচে ৫৭ পয়েন্ট নিয়ে তাদের মাঝে দুই নাম্বারে আছে সেভিয়া।

শেয়ার করুন

এই বিভাগের আরও সংবাদ
© All rights reserved © 2022 Muktinews24.com © এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি। সকল স্বত্ব www.muktinews24.com কর্তৃক সংরক্ষিত.
Technical Support Moinul Islam