তথ্য মন্ত্রনালয় কর্তৃক নিবন্ধনকৃত, যার রেজি নং-৩৬

শুক্রবার, ২৭ মে ২০২২, ১২:১৩ পূর্বাহ্ন

সবজির গ্রাম বনগাঁও হাইব্রিড করলা টিয়া সুপার চাষে সফল কৃষক শপিক মিয়া

  • প্রকাশ শনিবার, ২৬ মার্চ, ২০২২, ১১.২২ এএম
  • ৩৬ বার ভিউ হয়েছে

এম.মুসলিম চৌধুরী, মৌলভীবাজার প্রতিনিধি: নিরাপদ সবজির গ্রাম বনগাঁও। যে গ্রামের অধিকাংশ পরিবার কৃষি নির্ভরশীল। তাই সারা বছর এই গ্রামে উৎপাদিত হয় বিষমুক্ত নানা জাতের সবজি। এবার অধিক ফলনশীল ও আকর্ষণীয় হাইব্রিড করলা টিয়া সুপার চাষে চমক সৃর্ষ্টি করেছেন শ্রীমঙ্গল উপজেলার সিন্ধুরখান ইউনিয়নের সবজির গ্রাম হিসাবে পরিচিত বনগাঁও গ্রামের কৃষক শপিক মিয়া। লালতীরের অধিক ফলনশীল ও আকর্ষণীয় হাইব্রিড করলা টিয়া সুপার চাষের সফলতায় অনান্য কৃষকদের মাঝেও সারা জাগিয়েছেন তিনি। তাঁর এমন সফলতা দেখে এ গ্রামের বেকার যুবক সহ অনেকেই এখন ঝুঁকছেন করলা চাষের দিকে। অল্প খরছে অধিক লাভবান হওয়ায় করলা চাষ করতে আগ্রহী হয়ে উঠেছেন এলাকার অনেক কৃষক। এই উচ্চ ফলন শীল বীজ সকল কৃষদের মাঝে বিস্তার ঘটাতে উদ্যোগ নিয়েছে বীজ এর উৎস প্রতিষ্ঠান লাল তীর সীড। শ্রীমঙ্গল উপজেলার সিন্ধুরখান ইউনিয়নের বনগাঁও গ্রামের কৃষক শপিক মিয়া। তার আড়াই বিঘা জমিতে প্রথম বারের মত পরীক্ষা মূলক শুরু করেন লালতীর এর হাইব্রিড জাতের করলা টিয়া সুপার চাষ। তার মাঠে এখন সবুজের সমারোহ। চারা লাগানোর ৪৫ দিনের মাথায় ফসল সংগ্রহ করা শুরু করেন এই কৃষক। ওজনে একেক টি করলা হয়ে থাকে ৩০০ গ্রাম। আড়াই বিঘা জমিতে করলা চাষ করতে খরচ হয়েছে ৬০ হাজার টাকার মতো। আর মাঠ থেকে প্রতি প্রতি কেজি করলা বিক্রি করেছেন ৫০ থেকে ৬০ টাকা মূল্যে। প্রথম অবস্তায় ৮৫ হাজার টাকার করলা বিক্রি করেছেন কৃষক শপিক মিয়া। একর প্রতি হাইব্রিড করলা টিয়া সুপার উৎপাদন হয় ১২ থেকে ১৪ টন। সবজি চাষে সফল কৃষক শপিক মিয়া জানান, এই প্রথম পরীক্ষা মূলকভাবে চাষ করেছি টিয়া সুপার জাতের করলা। চাষে সফলতা পেয়েছি। আর বাজারে করলার চাহিদাও ভালো। পাইকার এবং স্থানীয়রা সবজি খেত থেকে করলা ক্রয় করে নিচ্ছেন। বাণিজ্যিকভাবে হাইব্রিড করলা টিয়া সুপার চাষ লাভ জনক। পরবর্তীতে আরো এক লক্ষ টাকার উপরে করলা বিক্রি করতে পারবেন বলে জানান তিনি।
এখানকার স্থানীয় কৃষক রজত দেব, ইমন মিয়া, কাদির মিয়া সহ অনেকেই জানালেন, শপিক মিয়া হাইব্রিড করলা চাষ শুরু করার দেড় মাস সময়ে চাষে সফল হয়েছেন। তাঁর চাষ দেখে আমাদের মাঝে ব্যাপক উৎসাহ তৈরি হয়েছে। তার এ সফলতা দেখে গ্রামের অনেকেই এই জাতটি চাষ করার পরিকল্পনা করছে। শ্রীমঙ্গল কৃষি অফিসের উপ-সহকারী কৃষি কর্মকর্তা শাহদত আহমেদ বাবুল জানান, টিয়া সুপার করলা খুব ভালো জাতের একটা বীজ। ফলের ওজন ভালো। এই জাতের বীজ ব্যবহার করলে কৃষক লাভবান হবে বেশি। সিন্ধুরখান ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ইয়াছিন আরাফাত রবিন বলেন, কৃষি নির্ভর গ্রাম বনগাঁও। তবে এখানে পানির সংকটের কারণে অনেক কৃষি জমিতে ফলন হচ্ছেনা। তাই এখানে দ্রুত সেচের ব্যবস্থা করার জন্য সরকারের সংশ্লিষ্ট দপ্তরের প্রতি আহবান জানান তিনি। হাইব্রিড করলা টিয়া সুপার বীজ এর উৎস প্রতিষ্ঠান লাল তীর সীড লিমিটেড এর বিভাগীয় ব্যবস্থাপক তাপস চক্রবর্তী জানান, হাইব্রিড করলা টিয়া সুপার এদেশের আবহাওয়া ও জলবায়ুতে সহনশীল। সারা বছর চাষযোগ্য হাইব্রিড জাত। দেখতে আকর্ষণীয় সবুজ এবং খেথে মধ্যম তিক্ততা, নরম ও সুস্বাদু। সেচও নিষ্কাশনের সুবিধাযুক্ত উঁচু দোআঁশ মাটিতে টিয়া সুপার ফলন ভালো হয়ে থাকে। কৃষকদের জন্য অনেকটাই আর্থিকভাবে লাভজনক। শ্রীমঙ্গল উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান ভানু লাল রায় জানান, আমরা যারা ক্রেতা বাজার থেকে একটা সবজি ৫০ টাকা কেজিতে ক্রয় করি, কিন্তু এই সবজি একজন কৃষক ৩০ টাকা কেজিতেও বিক্রি করতে পারেন না। তাই কৃষদের নায্য মূল্য পেতে হলে বাজার মনিটরিংটা প্রয়োজন। তাই আমরা সবাই মিলে বাজার মনিটরিং করার চেষ্টা করছি। শপিক মিয়ার মত অন্যান্য কৃষকরাও যেন তাদের অনেক অনাবাদি, খালি পড়ে থাকা জমিতে সবজি চাষ বৃদ্ধি করেন। এ অঞ্চলে সবজি চাষ বৃদ্ধি এবং নতুন নতুন জাতের সবজির প্রসার ঘটাতে আমরা কাজ করে যাচ্ছি বলে জানান বিভাগীয় ব্যবস্থাপক তাপস চক্রবর্তী।

শেয়ার করুন

এই বিভাগের আরও সংবাদ
© All rights reserved © 2022 Muktinews24.com © এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি। সকল স্বত্ব www.muktinews24.com কর্তৃক সংরক্ষিত.
Technical Support Moinul Islam