তথ্য মন্ত্রনালয় কর্তৃক নিবন্ধনকৃত, যার রেজি নং-৩৬

সোমবার, ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২২, ০৪:৩০ অপরাহ্ন

আশ্রয়ণ প্রকল্পে বদলে গেলো তাদের জীবন

  • প্রকাশ মঙ্গলবার, ১২ এপ্রিল, ২০২২, ৬.৪৩ এএম
  • ৪৪ বার ভিউ হয়েছে

মুক্তিনিউজ২৪.কম ডেস্কঃ ‘দেশের একটি মানুষও গৃহহীন থাকবে না’-প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সেই প্রত‌্যয়ে তার আবেগের প্রকল্প ‘আশ্রয়ণের’ মাধ্যমে দুই ধাপে ঘর পেয়েছেন এক লাখ ২৩ হাজার ২৪৪টি গৃহহীন ও ভূমিহীন পরিবার। তৃতীয় ধাপে ঘর পাবে আরও ৬৫ হাজার ৪৭৪টি পরিবার।এতে দুই শতক জমির মালিকানাসহ সেমিপাকা ঘর করে দেওয়া হচ্ছে। একইভাবে ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠীর মতো সমাজে পিছিয়ে পড়া জনগোষ্ঠীর জন‌্যও রয়েছে ঘর দেওয়ার প্রকল্প। এতে বদলে যাচ্ছে তাদের জীবনযাত্রার মান। উঠে আসছে সমাজের মূলস্রোতে।একশ দশ বছরের পেয়ারুল বানু একধ‌্যানে পুতা দিয়ে সুপারি বাটছেন। কানে একটু কম শুনলেও কথা বলতে পারেন খুব ভালোভাবে। এই যে ঘর এটা কে দিয়েছে জানতে চাইলে তার উত্তর, ‘হাসিনা দিছে বাবা, হাসিনা। আল্লাহ তারে হায়াত বাড়ায় দিক, সবকিছুতে বরকত দিক।’

ইসমাইল হোসেন। ক্লাস টেনে পড়েন। স্বপ্ন দেখেন একদিন অনেক বড় হবে। বাবা মো. ইবাদুল হক আর রোজিনা বেগমের সঙ্গে আশ্রয়ণের একটি ঘরে থাকে সে। জীবনের পরিবর্তনটা এখানে কেমন, প্রশ্ন করতেই ইসমাইলের উত্তর, ‘বিদ‌্যুৎ আছে, মাথার ওপর ছাদ আছে, এখানকার পরিবেশও খুব ভালো। এটা আগে পাইনি। আগের থেকে পড়াশোনা অনেক ভালো হচ্ছে। অনেক বড় হতে চাই।’

পেয়ারুল বানু এবং ইসমাইল হোসেন-দুই প্রজন্মের এই দুজনের সুখে-শান্তিতে থাকা কিংবা স্বপ্ন দেখার সাহস যুগিয়েছে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার আশ্রয়ণ প্রকল্প। পেয়ারুল বানু ও ইসমাইলের মতো এমন লাখো গৃহহীন ও ভূমিহীন মানুষকে একটি ঠিকানা দিয়েছে এই প্রকল্প।

সম্প্রতি রাজশাহী ও সিরাজগঞ্জ এলাকা ঘুরে উপকারভোগীদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, এই একটি ঘরই তাদের জীবনই বদলে দিয়েছে। প্রত‌্যেকেই কোনো না কোনো কর্ম করে এখন স্বাবলম্বী। সন্তানদের পড়াশোনা করাচ্ছেন। এক সময়ে অবহেলিত, নিঃস্ব মানুষগুলো এখন সুন্দর আগামীর স্বপ্ন দেখছেন। এজন‌্য প্রধানমন্ত্রীর প্রতি তাদের কৃতজ্ঞতার শেষ নেই।

রাজশাহীর গোদাগাড়ী উপজেলার রানীনগরে দ্বিতীয় পর্যায়ে ঘর পেয়েছেন ৬০টি পরিবার। তৃতীয় পর্যায়ে পাবেন আরও পাঁচটি পরিবার। এই আশ্রয়ণের একজন উপভোগী মো. আশরাফুল ইসলাম। নদীতে সব কেড়ে নেওয়ার পর ২০ বছর ধরে সরকারি জমিতে কোনো রকম মাথাগুজে থাকতেন। সেখানেই এখন আশ্রয়ণের ঘর পেয়েছেন তিনি। নিজে কৃষি কাজ করেন আর তার স্ত্রীকে ছোট একটা দোকান করে দিয়েছেন।

‘আমরা খুব ভালো আছি। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী বিদ‌্যুতের ব‌্যবস্থা করে দিছেন, পানির ব‌্যবস্থা করে দিছেন। ঘর পেয়ে তিন মেয়েকে বিয়ে দিয়েছি। এক ছেলে আছে। সেও আলাদা ঘর পেয়েছে। আমরা এখন সুখে শান্তিতেই আছি’, বলছিলেন আশরাফুল ইসলাম।উপকারভোগীদের আরেকজন মো. তাসলিমা বেগম। এক ছেলে, এক মেয়ে আর স্বামীকে নিয়ে বসবাস। ভূমিহীন তসলিমার এখন একটাই স্বপ্ন ছেলে মেয়েদের মানুষ করা। স্বামী ভ‌্যান চালিয়ে, কৃষি কাজ করে জীবিকা নির্বাহ করেন।তিনি বলেন, ‘আমাদের অনেক উন্নয়ন হয়েছে। আমরা ভালো আছি। ছেলে-মেয়েদের সুবিধা হয়েছে। তারা এখন বিদ‌্যুতের আলোয় পড়াশোনা করে।’

ইসমাইল হোসেরে ছেলে এসএসসি পরীক্ষা দেবে। ছেলেকে নিয়ে তার অনেক স্বপ্ন। নিজে কষ্ট করেন, কৃষিকাজ করেন। কিন্তু ছেলে ওদিকে কখনও নেন না। প্রধানমন্ত্রীর উপহারের ঘর পেয়ে এখন মাথা থেকে চিন্তা চলে গেছে তার। অন্তত মাথার ওপর ছাদটুকু তো আছে।

সেই কথা বলতে গিয়ে ইসমাইল স্মৃতিচারণ করেন পুরোনো দিনের, ‘আলিপুর গ্রামে আমরা থাকতাম। নদী ভাঙনে সব গেছে। অনেক দিন এখানে সেখানে থাকছি। ভাঙা টিন আর এটা ওটা দিয়ে ছাপরা করে থাকতাম।’

শেয়ার করুন

এই বিভাগের আরও সংবাদ
© All rights reserved © 2022 Muktinews24.com © এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি। সকল স্বত্ব www.muktinews24.com কর্তৃক সংরক্ষিত.
Technical Support Moinul Islam