তথ্য মন্ত্রনালয় কর্তৃক নিবন্ধনকৃত, যার রেজি নং-৩৬

শনিবার, ২১ মে ২০২২, ০৬:০৪ অপরাহ্ন

ঈদের পোশাক তৈরিতে ব্যস্ত নন্দীগ্রামের দর্জিরা

  • প্রকাশ শনিবার, ২৩ এপ্রিল, ২০২২, ৬.৪১ এএম
  • ১৯ বার ভিউ হয়েছে

মুক্তিনিউজ২৪.কম ডেস্কঃ  ঈদ মানে আনন্দ ঈদ মানেই খুশি। আর ঈদে নতুন নতুন পোশাক তৈরি করা বাঙ্গালীর ঐতিহ্য। করোনা মহামারীর কারণে সেই ঐতিহ্যে কিছুটা ভাটা পড়েছিল। এবার পরিস্থিতি অনেকটা স্বাভাবিক। তাই বগুড়ার নন্দীগ্রামের ক্রেতারা নিজেদের পছন্দের কিংবা একটু ভিন্ন ডিজাইনের ফিটিং পোশাক তৈরির জন্য ভিড় করছেন নামিদামি থেকে শুরু করে পাড়া-মহল্লার দর্জি দোকানে।সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, নন্দীগ্রামে নিউ মার্কেট, বসুন্ধরা শপিং কমপ্লেক্স, জনতা মার্কেট, খন্দকার প্লাজাসহ বিভিন্ন টেইলার্সের কারিগররা পোশাক তৈরিতে চরম ব্যস্ত সময় পার করছে। সঠিক সময় পোশাক ডেলিভারি দেওয়ার জন্য দিন-রাত কাজ করতে হচ্ছে এ সকল কারিগরদের। তারা শার্ট, প্যান্ট, সালোয়ার-কামিজ, ফতুয়া, ব্লাউজ, থ্রি-পিছ, পাঞ্জাবি, মেক্সিসহ বিভিন্ন ধরনের পোশাক সেলাই করছেন।

নন্দীগ্রামের পি.এম টেইলার্সে কাপড় তৈরি করতে আসা মেরিনা আক্তার বলেন, সামনে ঈদ তাই নিজের ও মেয়ের জামা কাপড় বানাতে এসেছি। একটু আগেভাগে কাপড় বানাতে না দিলে ঈদের আগে পাওয়া যাবেনা। এজন্যেই টেইলার্সে এসেছি। তাছাড়া রেডিমেড কাপড় চপর ঠিকঠাক হয় না। তাই ইচ্ছামতো জামা কাপড় তৈরির জন্য টেইলার্সে বানাতে দিলাম। নন্দীগ্রামের পলাশ টেইলার্সের কারিগর ফেরদৌস আলী জানান, সারা বছর আমাদের টুকটাক কাজ থাকে। তবে বিভিন্ন তিথিতে কাজের চাপ বেশি হয়। বিশেষ করে রোজার ঈদে পোশাক তৈরির কাজ অনেক বেশি হয়। করোনার কারণে দুই বছর কারিগরদের মানবতর জীবনযাপন করতে হয়েছে। এবার কাজ বেশ ভালো। অনেক কারিগরের এখন দিন-রাত কাজ করতে হচ্ছে।

নন্দীগ্রামের জি.এস টেইলার্সের কাটিং মাস্টার রাধানাথ বলেন, ঈদকে সামনে রেখে মানুষ নতুন নতুন ডিজাইনের জামা কাপড় বানাচ্ছে। আমরা চেষ্টা করছি ক্রেতাদের পছন্দের পোশাক তৈরি করে দেওয়ার জন্য। সঠিক সময় পোশাক ডেলিভারি দেওয়ার জন্য এখন আমাদের রাত জেগে কাজ করতে হচ্ছে।

শেয়ার করুন

এই বিভাগের আরও সংবাদ
© All rights reserved © 2022 Muktinews24.com © এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি। সকল স্বত্ব www.muktinews24.com কর্তৃক সংরক্ষিত.
Technical Support Moinul Islam