তথ্য মন্ত্রনালয় কর্তৃক নিবন্ধনকৃত, যার রেজি নং-৩৬

রবিবার, ২৭ নভেম্বর ২০২২, ০৬:১৮ অপরাহ্ন
সদ্য সংবাদ :
সিলেট ’ল কলেজের চারশত আইন বিভাগের শিক্ষার্থীদের বরণ করে নিল ছাত্রলীগ ঘোড়াঘাটে রোপনকৃত ভূট্টা ক্ষেতে যুবকের মরদেহ উদ্ধার প্রতারণার অভিযোগে ভুয়া সীমানা পিলার- খেলনা পিস্তলসহ নারী আটক ইবিতে ‘গ্লোবাল সিটিজেনশিপ এন্ড সিভিক এডুকেশন’ শীর্ষক কর্মশালা অনুষ্ঠিত সান্তাহারে রেলওয়ে শ্রমিকলীগ নেতা শামীমের ইন্তেকাল : শোক প্রথম বারের মত অনুষ্ঠিত হলো বাংলাদেশ-ভারত সাংবাদিক ফ্রেন্ডশিপ ফুটবল ম্যাচ বড়লেখায় ভোক্তার অভিযানে ৩টি প্রতিষ্টানকে জরিমানা ডোমারে ট্রাফিক পুলিশের সচেতনতামূলক প্রচারণা জলঢাকা জাতীয় সাংবাদিক সংস্থার সভাপতি রাজ,সাধারণ সম্পাদক রিয়াদ ঘোড়াঘাটে যুবকের লাশ উদ্ধার

রোজায় যেসব খাবার সুস্থ রাখবে আপনাকে

  • প্রকাশ শনিবার, ২ এপ্রিল, ২০২২, ৪.৪৪ এএম
  • ১০৮ বার ভিউ হয়েছে

মুক্তিনিউজ২৪.কম ডেস্ক: পবিত্র রমজান কড়া নাড়ছে প্রতিটি মুসলিমের দোর গোড়ায়। এই গরমকালে রোজা রাখা কষ্টসাধ্য কাজ। ক্লান্তির পাশাপাশি দেখা দিতে পারে পানিশূন্যতাও। তাই সারা দিন রোজা রাখার সঙ্গে নিজেকে সুস্থ রাখাও জরুরি। আসুন জেনে নেওয়া যাক, কোন খাবারগুলো আপনাকে রোজায় সুস্থ রাখতে সাহায্য করবে।
ইফতারের সময়

ইফতারে এমন খাবার রাখবেন, যাতে প্রাকৃতিক চিনির জোগান থাকে এবং যা দ্রুত শক্তি জোগাতে সাহায্য করে।

পানীয় : পানি, ফলের শরবত, স্মুথি, দুধ- এগুলো পানীয়ের অন্তর্ভুক্ত। দুধ ও ফল দিয়ে বানানো ড্রিংকস যেমন ব্যানানা শেক, ম্যাঙ্গো শেক প্রাকৃতিকভাবে সুগার ও ক্যালরির ভালো উৎস। অতিরিক্ত চিনি দেওয়া শরবত বা কৃত্রিম ফলের জুস খাওয়া যাবে না। ঘরে তৈরি ফ্রেশ ফলের জুস নিন।

খেজুর : খেজুর শর্করা ও খনিজ যেমন পটাশিয়াম, কপার, ম্যাঙ্গানিজ এবং আঁশের অনেক ভালো উৎস। ইফতারে তাই দুটি করে খেজুর খান।

ফল : ইফতারে ফল ডিহাইড্রেশন দূর করে। বিশেষ করে পানিসমৃদ্ধ ফল যেমন তরমুজ, আনারস, বাঙ্গি, কমলা, মাল্টা, নাশপাতি খান।

স্যুপ : সবজি ও চিকেন দিয়ে তৈরি স্যুপ রাখা ভালো। মাঝেমধ্যে ছোলা, পিঁয়াজু ও বেগুনির বদলে আমরা স্যুপ রাখতে পারি।

দই : দইয়ে প্রোটিন, ক্যালসিয়াম, আয়োডিন ও ভিটামিন ডি থাকে, সহজে খাবার হজম করে। ইফতারে তাই দই, চিড়া-মুড়ি খেতে পারেন। সাহরিতেও খাওয়ার পরও দই খেতে পারেন।

কাঁচা ছোলা : রান্না ছোলার থেকে কাঁচা ছোলায় পুষ্টিগুণ বেশি। রান্না করলে যে তেল মসলা খাওয়া হতো, সেটা থেকেও বাঁচা যায়। ছোলায় ভিটামিন, খনিজ লবণ, ম্যাগনেশিয়াম, ফসফরাস ও উচ্চ প্রোটিন রয়েছে। শরীরে শক্তির জোগান দিতে এর কোনো বিকল্প নেই।
রাতের খাবার

ইফতারের পর রাতে হালকা খাবার খাওয়াই উত্তম। রাতে লাল আটার রুটি, পাস্তা, ভাত অল্প পরিমাণে খাবেন। প্রোটিনের উৎস হিসেবে বিনস, ডাল ও আঁশের চাহিদা পূরণের জন্য সালাদ থাকতে পারে।
সেহরির খাবার

সেহরিতে শস্যযুক্ত খাবার রাখতে হবে। যেসব খাবার ধীরে ধীরে হজম হবে ও সারা দিন এনার্জি দেবে। যেমন: ওটস/কর্নফ্লেক্স: পানি, দুধ বা দই দিয়ে খাওয়া যায়, সঙ্গে ফল, বাদাম।

সবজি ও সালাদ : সেহরিতে খাবারের সঙ্গে ভিটামিন, মিনারেলস ও পানীয়ের উৎস হিসেবে সালাদ ও সবজি থাকবে।

মনে রাখবেন, সেহরি আজানের আধা ঘণ্টা আগে শেষ করবেন। সেহরি শেষে তাড়াহুড়া করে বেশি পানি পান করবেন না। ভাজা-পোড়া, তৈলাক্ত ও মিষ্টিজাতীয় খাবার বর্জন করুন। বিশেষ করে সেহরিতে মিষ্টি খাবেন না, এতে তৃপ্তি হরমোন লেপটিন কমে যায়, ফলে ক্ষুধা বেড়ে যায়। চা, কফি পানিশূন্যতা বাড়ায়। খেজুর ও সাধারণ পানি দিয়ে রোজা ভাঙা উচিত।

শেয়ার করুন

এই বিভাগের আরও সংবাদ
© All rights reserved © 2022 Muktinews24.com © এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি। সকল স্বত্ব www.muktinews24.com কর্তৃক সংরক্ষিত.
Technical Support Moinul Islam