তথ্য মন্ত্রনালয় কর্তৃক নিবন্ধনকৃত, যার রেজি নং-৩৬

শুক্রবার, ১৯ অগাস্ট ২০২২, ১০:২৯ পূর্বাহ্ন
muktinews24
সদ্য সংবাদ :
পলাশবাড়ীতে বিদ্যুৎস্পৃষ্টে এক ব্যক্তির মৃত্যু রংপুরের কাউনিয়ায় চাঞ্চল্যকর স্কুলছাত্রী সানজিদা ইভা হত্যার ঘটনায় এক দিনের মধ্যে রহস্য উদঘাটন  ঝড়ো আবহাওয়া ও মুষলধারে বৃষ্টিকে উপেক্ষা করে কয়েক হাজার নেতা-কর্মীদের উপস্থিতিতে পিরোজপুরে শোক দিবস উপলক্ষে জেলা আওয়ামীলীগের সভা কুড়িগ্রাম সদর থানায় লাশঘরের উদ্বোধন ট্রাকচাপায় ভ্যানচালকের মৃত্যু শেখ হাসিনা মানুষের কষ্ট বোঝেন : ওবায়দুল কাদের ৪ মাসে এক কোটি ট্রেনের টিকিট বিক্রি, দাবি সহজের শ্রীমঙ্গলে মুরগি ও ডিমের ৪ প্রতিষ্টানকে জরিমানা ঘোড়াঘাটে নদীর পানি থেকে অজ্ঞাতনামা ব্যক্তির লাশ উদ্ধার কুড়িগ্রামে বিদ্যুৎস্পৃষ্টে প্রাণ গেলো এসএসসি পরিক্ষার্থীর

দুর্গাপুরে কোরবানি ঈদে বিক্রির জন্য প্রস্তুত ৯ হাজার গরু-ছাগল

  • প্রকাশ বুধবার, ৬ জুলাই, ২০২২, ১০.২৮ এএম
  • ৫৬ বার ভিউ হয়েছে

কলিহাসান, দুর্গাপুর (নেত্রকোণা) প্রতিনিধি: আসন্ন পবিত্র ঈদুল আজহা উপলে গবাদিপশু সমৃদ্ধ এ অঞ্চলে প্রায় ৮ হাজার ৭শ ৩৪টি পশু প্রস্তুত করেছেন ছোট বড় সব খামারিরা। গত মঙলবার সরেজমিনে ঘুরে দেখা যায়, উপজেলার ৭টি ইউনিয়ন ও ১টি পৌরসভায় তালিকাভুক্ত বাণিজ্যিক খামারি নেই, প্রান্তিক খামারি গাভী-৩৫টি,হাস-মুরগি ৬২টি ও মৌসুমি খামারি-২৫টি। ওইসব খামারে গরু-ছাগল,হাস-মুরগী লালন-পালন করা হচ্ছে।
উপজেলা প্রাণিসম্পদ অফিসের তথ্যমতে, দুর্গাপুর উপজেলায় খামারিরা গরু-ছাগল-ভেড়া মোটাতাজা করছেন। এর মধ্যে ষাঁড় গরু ৪ হাজার ৬শত ৬০টি, বলদ গরু ২০৫টি, গাভী ১হাজার ১শত ৫টি, ছাগল ২ হাজার ৬শত ১টি ও ভেড়া ১শত ৬৩টি। এছাড়াও প্রান্তিক কৃষক ও মৌসুমি ব্যাপারী পর্যায়ের সব মিলে প্রায় ৯ হাজারের অধিক পশু কোরবানির জন্য প্রস্তুত রয়েছে। এ উপজেলায় দেশি জাতের গরু মোটাতাজা করা হচ্ছে ৫ ভাগ। এ ছাড়া শংকর জাত, ফ্রিজিয়ান মিলিয়ে রয়েছে ২০ ভাগ।
সরেজমিন ঘুরে বিভিন্ন খামারিদের সাথে কথা বলে জানা গেছে, বর্তমান বাজারে গো-খাদ্যের দাম উর্দ্ধমূখী। এ ছাড়া চিটা, ভুট্টাভাঙা, লবন,ফিড, খুদ, খৈলসহ সবুজ ঘাস খুচরা বাজারে কেজিপ্রতি বেড়েছে ১০-২০ টাকা। উপজেলায় স্থায়ীভাবে ৩টি হাটে গবাদিপশু বেচাকেনা হয়। আসন্ন কোরবানীর ঈদকে কেন্দ্র করে উপজেলা প্রশাসন অস্থায়ী ১৪টি হাট ইজারা দেন গেল মঙলবার বিকেলে।
স্থানীয়দের সাথে কথা বলে জানা গেছে, দূর-দুরান্ত থেকেও ক্রেতারা এ উপজেলায় এসে স্থানীয় হাট-বাজার ছাড়াও খামার থেকে গরু ক্রয় করে নিয়ে যান। উপজেলার হাটগুলোর মধ্যে স্থায়ী হলো ৩টি। সেগুলো হলো ঝানজাইল,শিবগঞ্জ,কুমুদগঞ্জ হাট। অনেক গরু ব্যবসায়ী রয়েছেন, যারা অস্থায়ী বাজার থেকে গরু ক্রয় করে দূর-দূরান্তে গিয়ে বিক্রি করে থাকেন।
এ ব্যাপারে দুর্গাপুর উপজেলা প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা ডা. শিমু দাস বলেন, আমি যতটুকু জানি এ এলাকায় গবাদিপশুর গুণগত মান ভালো। কৃত্রিম উপায়ে না করে প্রাকৃতিক উপায়ে মোটাতাজাকরণ করা হয়। বাজারে গো-খাদ্যের দাম বেশি হওয়ায় অধিকাংশ খামারিরা বিপাকে রয়েছেন। এতে যারা গরু-ছাগল মোটাতাজা করেছেন তাঁদের আর্থিক তির সম্ভাবনাও রয়েছে। এ জন্য গবাদিপশু পালনকারী ও খামারিদের দানাদার খাবারের উপর চাপ কমিয়ে ঘাস উৎপাদনের দিকে মনোযোগ বাড়ানোর পরামর্শ দেওয়া হচ্ছে। আসন্ন কোরবানীর ঈদকে কেন্দ্র করে প্রতিটি স্থায়ী ও অস্থায়ী হাটে মেডিক্যাল টিম পরিদর্শণ করছেন। স্বাস্থ্য সম্মত গরু-ছাগল যাতে কোরবানীর জন্য ক্রেতারা ক্রয় করেণ, সে ব্যাপারে বিভিন্ন পরামর্শ দেয়া হচ্ছে।

শেয়ার করুন

এই বিভাগের আরও সংবাদ
© All rights reserved © 2022 Muktinews24.com © এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি। সকল স্বত্ব www.muktinews24.com কর্তৃক সংরক্ষিত.
Technical Support Moinul Islam