তথ্য মন্ত্রনালয় কর্তৃক নিবন্ধনকৃত, যার রেজি নং-৩৬

মঙ্গলবার, ০৪ অক্টোবর ২০২২, ০২:৪৫ পূর্বাহ্ন
সদ্য সংবাদ :
প্রাথমিকে শিক্ষক নিয়োগ: চূড়ান্ত ফল নভেম্বরে, যোগদান ডিসেম্বরে শাকিব-বুবলীর বিয়ে হয়েছে কবে? দুর্গাপুরে বিশ্ব শিশু দিবস পালিত ও পুরষ্কার বিতরণ দূর্গাপূজা  হিন্দু ধর্মাবলম্বী এক হাজার পরিবারকে খাদ্য সহায়তা দিলেন সৈয়দপুর পৌর মেয়র কুড়িগ্রাম জেলার শ্রেষ্ঠ বিদ্যোৎসাহী সমাজকর্মী হলেন আবু সাঈদ সরকার বিশ্ব শিশু দিবস উপলক্ষে চিত্রাঙ্কন প্রতিযোগিতা ও র্্যালী শ্রীমঙ্গলের মাদক কারবারি ইয়াবাসহ রাজনগরে গ্রেপ্তার বালিয়াডাঙ্গীতে জাতীয় উৎপাদনশীলতা দিবস পালিত পার্বতীপুরে পূজা মন্ডপ পরিদর্শনে মোস্তাফিজুর রহমান এমপি ‘সকল ধর্মের মানুষের সমান অধিকার নিশ্চিত করেছেন শেখ হাসিনা’

গাইবান্ধা হর্টিকালচার সেন্টারের বছরব্যাপী ফল উৎপাদনের মাধ্যমে পুষ্টি উন্নয়ন প্রকল্পের সার্বিক কার্যক্রম পরিদর্শন- হুইপ গিনি এমপি 

  • প্রকাশ মঙ্গলবার, ১৬ আগস্ট, ২০২২, ১২.২৫ পিএম
  • ২৯ বার ভিউ হয়েছে
ছাদেকুল ইসলাম রুবেল,গাইবান্ধাঃবাংলাদেশ জাতীয় সংসদের হুইপ মাহাবুব আরা বেগম গিনি এমপি আজ মঙ্গলবার নির্বাচনী এলাকায় গাইবান্ধা হর্টিকালচার সেন্টারের বছরব্যাপী ফল উৎপাদনের মাধ্যমে পুষ্টি উন্নয়ন প্রকল্পের আওতায় বাস্তবায়িত সার্বিক কার্যক্রম পরিদর্শন করেছেন। এসময় হার্টিকালচার সেন্টারের ঢাকা খামার বাড়ি বছরব্যাপী ফল উৎপাদনের মাধ্যমে পুষ্টি উন্নয়ন প্রকল্প পরিচালক ড. মেহেদী মাসুদ, গাইবান্ধা হর্টিকালচার সেন্টারের উপ-পরিচালক ড. মো: সাইখুল আরিফিন, রংপুর কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের অতিরিক্ত পরিচালক মো: শাহ আলম, গাইবান্ধা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক মো: বেলাল হোসেন, গাইবান্ধা প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক(ভারঃ) আবেদুর রহমান স্বপন, সাবেক ছাত্র লীগ নেতা তাহমিদুর রহমান সিজু, সাবেক ছাত্র লীগ নেতা মো: আসিফ সরকার প্রমুখ।
এসময় জাতীয় সংসদের হুইপ মাহবুব আরা বেগম গিনি এমপি বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে পুষ্টি সমৃদ্ধ বাংলাদেশ গড়ার লক্ষ্যে গাইবান্ধা হর্টিকালচার সেন্টার গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবে। তিনি বলেন, এখানকার মাটি অত্যন্ত উর্বর যেকোন বীজ ও চারা রোপ করলে সহজেই ভালো ফলন পাওয়া যায়।  এলক্ষ্যে ২০১৮ সালে ২১শে জুলাই হর্টিকালচার সেন্টার এখানে প্রতিষ্ঠা করা হয়।
উল্লেখ্য, এ প্রকল্পের আওতায় গাইবান্ধা হর্টিকালচার সেন্টারের বানিজ্যিক মিশ্র ফল বাগান প্রদর্শনী ৫টি, ফল বাগান ৫টি এবং ৫টি বসতবাড়িতে বাগান প্রদর্শনী বাস্তবায়িত হয়েছে। চলমান কার্যক্রমের মধ্যে আম, মাল্টা, কমলা, পেয়ারা, আনার, বেল, আতা, জাম, লটকণ ফলের চারা প্রদর্শনী ও সরকারের নির্ধারিত মূল্যে বিক্রি করা হচ্ছে। এসব বাগানে ৯১ প্রজাতির ফলের চারা পাওয়া যাচ্ছে। এছাড়া দেশি ও বিদেশি ফলের মাতৃ বাগান স্থাপন চলমান রয়েছে। এসব বাগানে বিদেশি ফলসমূহের মধ্যে রয়েছে থাই লংগান-পিংক, রেড ও হোয়াইট, ড্রাগন, লোকুয়াট, মিরাকেল্ল, বেরোবা, অলিভ, পার্সিমন, কফি, জাবোটিকাবা, রোলিনিয়া, নাশপাতি, পিচ, এপ্রিকট, ওয়ালনাট, হেজেলনাট, রাম্বুতান, সুরিনাম চেরি, ব্রাজিলিয়ান চেরি, অস্ট্রোলিয়ান চেরি, বল সুন্দরী, সীডলেস, ভিয়েতনামী খাটো,  কাজুবাদাম, এ্যাভোকাডো চারা কলম এখানে রয়েছে। পরে গাইবান্ধা হর্টিকালচার সেন্টারে ১টি উন্নত জাতের ফলের চারা রোপন করেন।

শেয়ার করুন

এই বিভাগের আরও সংবাদ
© All rights reserved © 2022 Muktinews24.com © এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি। সকল স্বত্ব www.muktinews24.com কর্তৃক সংরক্ষিত.
Technical Support Moinul Islam