তথ্য মন্ত্রনালয় কর্তৃক নিবন্ধনকৃত, যার রেজি নং-৩৬

শুক্রবার, ১৯ অগাস্ট ২০২২, ১১:০০ পূর্বাহ্ন
muktinews24
সদ্য সংবাদ :
পলাশবাড়ীতে বিদ্যুৎস্পৃষ্টে এক ব্যক্তির মৃত্যু রংপুরের কাউনিয়ায় চাঞ্চল্যকর স্কুলছাত্রী সানজিদা ইভা হত্যার ঘটনায় এক দিনের মধ্যে রহস্য উদঘাটন  ঝড়ো আবহাওয়া ও মুষলধারে বৃষ্টিকে উপেক্ষা করে কয়েক হাজার নেতা-কর্মীদের উপস্থিতিতে পিরোজপুরে শোক দিবস উপলক্ষে জেলা আওয়ামীলীগের সভা কুড়িগ্রাম সদর থানায় লাশঘরের উদ্বোধন ট্রাকচাপায় ভ্যানচালকের মৃত্যু শেখ হাসিনা মানুষের কষ্ট বোঝেন : ওবায়দুল কাদের ৪ মাসে এক কোটি ট্রেনের টিকিট বিক্রি, দাবি সহজের শ্রীমঙ্গলে মুরগি ও ডিমের ৪ প্রতিষ্টানকে জরিমানা ঘোড়াঘাটে নদীর পানি থেকে অজ্ঞাতনামা ব্যক্তির লাশ উদ্ধার কুড়িগ্রামে বিদ্যুৎস্পৃষ্টে প্রাণ গেলো এসএসসি পরিক্ষার্থীর

চাকরি ছেড়ে কফি চাষে সফল মধুপুরের ছানোয়ার

  • প্রকাশ মঙ্গলবার, ২ আগস্ট, ২০২২, ২.৪৫ পিএম
  • ৫৯ বার ভিউ হয়েছে

মুক্তিনিউজ২৪.কম ডেস্ক: ছানোয়ার হোসেন।পাঁচ বছর আগে চাকরি ছেড়ে শখের বশে শুরু করেন কফি চাষ। টাঙ্গাইল জেলার মধুুপুর উপজেলার মহিষমারা গ্রামের পাহাড়ি অঞ্চলে গড়ে তোলেন তার স্বপ্নের কফি বাগান।

ছানোয়ার হোসেনের দাবি মধুপুরে তিনিই প্রথম কফি চাষ শুরু করেন। ছানোয়ার হোসেন একজন বৃক্ষপ্রেমী এবং কৃষি উদ্যোক্তা। প্রায় ২ বিঘা জমিতে কফি বাগানে ৫-৬’শ পরিপক্ক গাছ রয়েছে। প্রত্যেকটি গাছে থরে থরে ঝুলছে ফল। দেখে মনে হয় যেন নিজ হাতে সাজিয়ে রেখেছেন কফির ছড়াগুলো।

তিনি কফি বাগান ছাড়াও কলা, পেয়ারা, মাল্টা এবং ফিলিপাইন থেকে এমডি-২ জাতের আনারসের চারা এনে চাষ করছেন। সদালাপী শিক্ষিত ছানোয়ারের কৃষিতে সফলতায় স্থানীয় অনেকেই কৃষির প্রতি ঝুঁকছেন।

ছানোয়ার হোসেন টাঙ্গাইলের মধুপুর উপজেলার মহিষমারা ইউনিয়নের মহিষমারা কলেজ পাড়া গ্রামের মো. জামাল হোসেনের ছেলে। জামাল হোসেনের ৪ সন্তানের মধ্যে তিনিই একমাত্র ছেলে সন্তান।

পড়াশোনা শেষ করে ১৯৯৩ সনে ছানোয়ার সিলেট জেলার দক্ষিণ সুরমা উপজেলার রেংগা হাজীগঞ্জ উচ্চ বিদ্যালয়ে ইংরেজি বিষয়ের শিক্ষক হিসেবে যোগদান করেন। কৃষির প্রতি তার একাগ্রতায় তিনি বেশি দিন চাকরি করতে পারেননি।

চাকরি ছেড়ে তিনি গ্রামে এসে কৃষি কর্মে ঝুঁকে পড়েন। কৃষিতে সফলতা পেয়ে ওই উপার্জিত অর্থে তিনি নিজ এলাকায় গড়ে তুলেছেন সুনামগঞ্জ পাবলিক উচ্চ বিদ্যালয় ও মহিষমারা কলেজ। এলাকায় তিনি একজন সফল কৃষি উদ্যোক্তা হিসেবে পরিচিত।

সরেজমিনে ছানোয়ার হোসেনের কফি বাগানে গিয়ে দেখা যায় তিনি নিজেই বাগানের পরিচর্যা করছেন। কফি চারাগুলো দেখতে কিছুটা দেবদারু চারার মত। প্রতিটি গাছে লতিয়ে রয়েছে গুচ্ছ গুচ্ছ কফির ফল।

তিনি জানান, প্রথমে তিনি কফির ২০০ চারা রাঙামটি জেলার রায়খালী থেকে সংগ্রহ করেছিলেন। সেখান থেকে তার আজকের এই বাগান।

তিনি বলেন, কফি ফল পাকলে সেগুলো শুকিয়ে মেশিনে প্রক্রিয়াজাত করে তবেই তা পান করার উপযোগী হয়। তবে তিনি শুকনো কফি দানা ও প্রক্রিয়াজাতকৃত কফি দুই ভাবেই বিক্রি করে থাকেন বলে জানান।

কেউ বাণিজ্যিকভাবে চাষ করতে চাইলে শুকনো দানা থেকে চারা তৈরি করে বিক্রি করার আশাও পোষণ করেন তিনি।

তিনি আরও জানান, মার্চ থেকে এপ্রিল মাসের মাঝামাঝি সময়ের মধ্যে প্রতিটি পরিপক্ক গাছে ফুল আসে। মে থেকে জুন মাসের মধ্যে ফুল থেকে গুটিতে পরিণত হয়। আগস্ট মাসের মাঝামাঝি সময় থেকে সেপ্টেম্বর মাসের মধ্যে গুটিগুলো পরিপক্কতা লাভ করে।পরে এই গুটিগুলো রোদে শুকিয়ে মেশিনে প্রক্রিয়াজাত করে বিক্রি করেন।

তিনি জানান, তার প্রক্রিয়াজাতকৃত কফি বাজারের প্যাকেটজাত কফির চেয়ে স্বাদে গন্ধে অনেকটাই আলাদা। কারণ তিনি প্রাকৃতিক জৈব সার ব্যবহার করে এই কফি উৎপাদন করেন।

মধুপুর উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা আল মামুন রাসেল বলেন, ছানোয়ার হোসেন একজন সফল কৃষি উদ্যোক্তা। তিনি ব্যক্তিগত ভাবে ২’শত কফির চারা নিয়ে চাষ শুরু করলেও পরবর্তীতে কৃষি অফিসের সহযোগিতায় তার ওই কফি বাগান সম্প্রসারিত করেছেন। কফি বাগান ছাড়াও তার আনারস, মাল্টা, পেয়ারা, কলা বাগান রয়েছে।

তিনি সবসময় কৃষি অফিসের পরামর্শ নিয়ে জৈব সার ব্যবহার করে কফিসহ অন্যান্য ফসল চাষ করেন। এতে তিনি ব্যাপক সফলতা পেয়েছেন।

শেয়ার করুন

এই বিভাগের আরও সংবাদ
© All rights reserved © 2022 Muktinews24.com © এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি। সকল স্বত্ব www.muktinews24.com কর্তৃক সংরক্ষিত.
Technical Support Moinul Islam