তথ্য মন্ত্রনালয় কর্তৃক নিবন্ধনকৃত, যার রেজি নং-৩৬

বৃহস্পতিবার, ২৯ সেপ্টেম্বর ২০২২, ০১:২১ পূর্বাহ্ন

সৈয়দপুরে নানা আয়োজনে আশুরা পালন

  • প্রকাশ মঙ্গলবার, ৯ আগস্ট, ২০২২, ১১.৪৮ এএম
  • ২৩ বার ভিউ হয়েছে
মোঃ জাকির হোসেন, সৈয়দপুর (নীলফামারী) প্রতিনিধিঃ হিজরি তথা ইসলামী বর্ষের প্রথম মাস মহররম। এই মাসের ১০ তারিখ পৃথিবী তথা মানব সৃষ্টির শুরু থেকেই অত্যন্ত তাৎপর্যপূর্ণ ও ইতিহাসসমৃদ্ধ দিন। এবছর এই দিনটি নানা আয়োজনে পালন করেছে বিশ্ব মুসলিম। প্রতি বছরের মত ইবাদত বন্দেগির মধ্য দিয়ে সুন্নী মুসলমানরা যেমন অতিবাহিত করেছে এই পবিত্র রজনী। তেমনি শিয়া সম্প্রদায় উদযাপন করেছে তাজিয়া স্থাপনসহ, মিছিল, শোকগীতি ও মাতমে কাটিয়েছে বিগত কয়েকটি দিন।
ইসলামের এই গুরুত্বপূর্ণ দিন যথাযথ মর্যাদা আর ভাবগাম্ভীর্যের সাথে পালনের জন্য এবং
শিয়াদের নানা আনুষ্ঠানিকতা নিরবচ্ছিন্ন ও শান্তিপূর্ণভাবে সম্পন্ন করার লক্ষে যথাযথ ব্যবস্থা নিয়েছে প্রশাসন। এরই আলোকে সৈয়দপুর থানার উদ্যোগে তিনদিন ধরে প্রায় ৪ শতাধিক পুলিশ সদস্য দায়িত্ব পালন করে। এরমধ্যে আছে পোশাকধারী, সাদা পোশাকে ডিবি, ডিএসবি। এছাড়াও বিজিবি, র্যাব সদস্যরাও নিয়োজিত রয়েছে আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে ও শান্তিপূর্ণ পরিবেশ নিশ্চিতকরণে।
গত ৩১ জুলাই পহেলা মহররম নববর্ষের দিন থেকেই আশুরা উপলক্ষে প্রস্তুতি শুরু করে মুসলমানরা। নফল রোজা পালন করেছেন অনেকে। সোমবার (৮ আগস্ট) দিবাগত রাত ছিল সেই মহিমান্বিত রাত। এইরাতে সৈয়দপুর শহরের প্রায় প্রতিটি মসজিদে ফজর পর্যন্ত মুসল্লীরা নফল নামাজ, কুরআন তেলাওয়াত, জিকির, বয়ানে মশগুল ছিল। সেই সাথে গত কয়েকদিন পাড়ায় মহল্লায় ওয়াজ মাহফিলও করা হয়েছে।
অন্যদিকে শিয়া সম্প্রদায়ের মানুষজন বাদ্য বাজনার মধ্য দিয়ে নববর্ষকে বরণ করে সৈয়দপুর শহরের ৪২ টি ইমামবাড়া আশুরার আনুষ্ঠানিকতার জন্য প্রস্তুত করার উদ্যোগ নেয়। শুরু হয় তাজিয়া বানানোসহ অন্যান্য কার্যক্রম। গত ৭ আগস্ট ইমামবাড়ায় ফাতিহা পাঠের মাধ্যমে মূল আনুষ্ঠানিকতা শুরু করে। ৮ আগস্ট স্থাপন করা হয় তাজিয়া। রাতব্যাপী চলে মর্সিয়া গাওয়া, লাঠি খেলা, মাতম, মান্নতের ঝান্ডা ও ইমামবাড়ার চাদরসহ নানা উপকরণ প্রদান, তবারক বিতরণ।
মঙ্গলবার (৯ আগস্ট) বাদ আসর বের করা হয় তাজিয়া মিছিল। প্রতিটি ইমামবাড়া থেকে পাইকরা ঝান্ডা (পতাকা) ও তাজিয়া নিয়ে মিছিল বের করে হাতিখানা কবরস্থান সংলগ্ন প্রতিকী কারবালা প্রান্তরে উপস্থিত হয়ে সেখানকার আনুষ্ঠানিকতার পর নিজ নিজ ইমামবাড়া প্রাঙ্গণে ফিরে ফাতিহা ও মোনাজাতের মাধ্যমে শেষ হবে ১০ দিনের কর্মসূচি।
এসব কার্যক্রম সুচারু ও সুন্দরভাবে সম্পন্ন করতে প্রশাসনের পক্ষ থেকে সার্বিক ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়। শেষ তিন দিন বিরতিহীন দায়িত্ব পালন করেন পুলিশ সদস্যরা। প্রতিটি ইমামবাড়ায় পাহারাসহ টহল দিয়ে আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি স্বাভাবিক রাখতে তারা অত্যন্ত পরিশ্রম করেন। সর্বোপরি শান্তিপূর্ণ পরিবেশে উৎসাহ উদ্দীপনার সাথে উৎসব মুখরভাবে আশুরার কার্যক্রম শেষ করতে পেরে কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেছেন ইমামবাড়া কমিটি।

শেয়ার করুন

এই বিভাগের আরও সংবাদ
© All rights reserved © 2022 Muktinews24.com © এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি। সকল স্বত্ব www.muktinews24.com কর্তৃক সংরক্ষিত.
Technical Support Moinul Islam