তথ্য মন্ত্রনালয় কর্তৃক নিবন্ধনকৃত, যার রেজি নং-৩৬

মঙ্গলবার, ০৪ অক্টোবর ২০২২, ০৪:০১ পূর্বাহ্ন
সদ্য সংবাদ :
প্রাথমিকে শিক্ষক নিয়োগ: চূড়ান্ত ফল নভেম্বরে, যোগদান ডিসেম্বরে শাকিব-বুবলীর বিয়ে হয়েছে কবে? দুর্গাপুরে বিশ্ব শিশু দিবস পালিত ও পুরষ্কার বিতরণ দূর্গাপূজা  হিন্দু ধর্মাবলম্বী এক হাজার পরিবারকে খাদ্য সহায়তা দিলেন সৈয়দপুর পৌর মেয়র কুড়িগ্রাম জেলার শ্রেষ্ঠ বিদ্যোৎসাহী সমাজকর্মী হলেন আবু সাঈদ সরকার বিশ্ব শিশু দিবস উপলক্ষে চিত্রাঙ্কন প্রতিযোগিতা ও র্্যালী শ্রীমঙ্গলের মাদক কারবারি ইয়াবাসহ রাজনগরে গ্রেপ্তার বালিয়াডাঙ্গীতে জাতীয় উৎপাদনশীলতা দিবস পালিত পার্বতীপুরে পূজা মন্ডপ পরিদর্শনে মোস্তাফিজুর রহমান এমপি ‘সকল ধর্মের মানুষের সমান অধিকার নিশ্চিত করেছেন শেখ হাসিনা’

ভাঙ্গন কবলিত মানুষের পাশে সরকার–জাহিদ ফারুক

  • প্রকাশ শুক্রবার, ১২ আগস্ট, ২০২২, ১১.৪২ এএম
  • ৪১ বার ভিউ হয়েছে

মুক্তিনিউজ২৪ ডট কম ডেস্কঃ

পানি সম্পদ প্রতিমন্ত্রী জাহিদ ফারুক এমপি বলেছেন, নদীভাঙনের ঝুঁকিতে থাকা মানুষের পাশে আছে আওয়ামী লীগ সরকার। দেশের সাড়ে ৬শ’ জায়গায় নদী ভাঙ্গন রয়েছে। এর মধ্যে ৬৫ টি স্পর্ট ঝুকিপুর্ণ এবং ২৬ টি এলাকা অতি ঝুকিপুর্ণ। সেগুলো সনাক্ত করে ইতোমধ্যে কাজ শুরু হয়েছে।শিক্ষা ও ধর্মীয় প্রতিষ্ঠান রক্ষায় গুরুত্ব দেয়া হচ্ছে সর্বোচ্চ। পানি কমলে ঝুকিপুর্ণস্থান গুলোতে স্থায়ী ব্যবস্থা নেয়া হবে। প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশে সরকার বন্যা ও নদী ভাঙ্গন কবলিত মানুষের পাশে রয়েছে।

আজ বরিশাল সদর উপজেলার শায়েস্তাবাদ ইউনিয়নের কামারপাড়া নামক  স্হানের নদী ভাংঘন পরিদর্শন শেষে ক্ষতিগ্রস্হ ব্যাক্তিদের উদ্দেশ্যে বক্তব্য প্রদান করেন।

প্রতিমন্ত্রী জাহিদ ফারুক বলেন, বর্তমান সরকার মানবতার পক্ষের সরকার; ভাঙন কবলিত মানুষের দুর্দশা লাঘবে এ সরকার বদ্ধপরিকর। নদী ভাঙন এলাকা সব সময় আমি নিজে গিয়ে দেখি। এটা আমার দায়িত্ব। অতীতেও অনেকবার নদী ভাঙন এলাকায় গিয়েছি। প্রতিবারই যখন সময় পাই নদী ভাঙন এলাকা পরিদর্শনে যাই। আমাদের অর্থনৈতিক সক্ষমতা বেড়েছে। সারাদেশে ১৬ হাজার ৭০০ কিলোমিটার বাঁধ রয়েছে। ৫ হাজার ৭শ’ ৫৭ কিলোমিটার উপকূলীয় অঞ্চলের বাঁধ। পূর্বের তুলনায় ভাঙ্গন ও ক্ষয়ক্ষতি কমে আসছে ভবিষতে তা অব্যাহত রেখে এর আরো উন্নতির লক্ষে কাজ করছে পানি উন্নয়ন বোর্ড।

প্রতিমন্ত্রী আরো বলেন, বরিশালের বিভিন্ন এলাকায় নদী ভাঙন হচ্ছে। আজকে কামারপাড়া, চরকাউয়া, লামছড়ি, বুখাইনগর ভুঁইয়াবাড়ি, নিমাই হাওলাদার বাড়ি এলাকা দেখেছি। এই এলাকাগুলোতে নদী ভাঙন কবলিত এলাকা। আমি পানি উন্নয়ন বোর্ডের কর্মকর্তাদের সঙ্গে নিয়ে পরিদর্শন করেছি। ভাঙন কবলিত এলাকা দেখে যেখানে যেখানে কাজ করতে হবে তাৎক্ষণিক নির্দেশনা দিয়েছি, সেভাবে কাজ হবে। ঝুঁকিপূর্ণ এলাকায় যেহেতু স্থায়ী প্রকল্প নেওয়া হচ্ছে, আগামী কয়েক বছরের মধ্যে বাংলাদেশের মানুষ অনেকাংশে পানিবন্দিত্বের হাত থেকে, নদী ভাঙন থেকে রক্ষা পাবে।

তিনি আরও বলেন, বঙ্গবন্ধু কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সরকার উন্নয়নের রোলমডেল বিদেশী সাহায্য ছাড়া দেশের অর্থায়নে পদ্মা সেতু নির্মান করা সম্ভব হয়েছে। প্রধানমন্ত্রী আগামী প্রজন্ম নিয়ে ভাবেন, সেজন্য তিনি আগামীর বাসযোগ্য বিশ্বমানের সুবিধা সম্বলিত বাংলাদেশ গড়তে চান। সেজন্য তিনি ডেল্টাপ্লান-২১০০ বাস্তবায়নের ঘোষণা দিয়েছেন। আর এই মহাপরিকল্পনার সিংহভাগ কাজই পানি সম্পদ মন্ত্রণালয় বাস্তবায়ন করবেন। এ মহাপরিকল্পনা বাস্তবায়ন হলে সারাদেশে নদীভাঙন ও জলাবদ্ধতার কোনো সমস্যাই থাকবে না। সুত্র- পানি সম্পদ মন্ত্রনালয়

পরিদর্শনকালে আরও উপস্থিত ছিলেন, সদর উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান মাজাবুবুর রহমান, মহানগর যুবলীগের যুগ্ম আহ্বায়ক মাহমুতদুল হক খান মামুনসহ প্রশাসনের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাবৃন্দ।

শেয়ার করুন

এই বিভাগের আরও সংবাদ
© All rights reserved © 2022 Muktinews24.com © এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি। সকল স্বত্ব www.muktinews24.com কর্তৃক সংরক্ষিত.
Technical Support Moinul Islam